শনিবার ২৮শে মার্চ ২০২০ |

প্রবাসী শ্রমিকরা বেশি মারা যাচ্ছেন হৃদরোগ-স্ট্রোকে

 মঙ্গলবার ২২শে জানুয়ারী ২০১৯ দুপুর ১২:২৮:২০
প্রবাসী

সৌদি আরবের দাম্মামে একটি কোম্পানিতে কর্মরত ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার  জাকির হোসেন। ১৬ জানুয়ারি রাতে হঠাৎ বুকে ব্যথা অনুভব করলে হাসপাতালে ভর্তি  হন। চিকিৎসারত অবস্থায় ওইদিনই মৃত্যুবরণ করেন এ সৌদি প্রবাসী।

৯ জানুয়ারি মৃত্যুবরণ করেন ইতালি প্রবাসী শাহাদাত হোসেন। পরবর্তী সময়ে  মেডিকেল পরীক্ষায় মৃত্যুর কারণ উল্লেখ করা হয় ‘স্ট্রোক’। চাঁদপুরের  ফরিদগঞ্জ উপজেলায় তার তিন সন্তান রয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে ইতালির উত্তর-পশ্চিম  সালেরনো এলাকায় বসবাস করতেন তিনি।

প্রবাসে কর্মরত শ্রমিকদের মৃত্যুর এ হার প্রতি বছরই বাড়ছে। পরিসংখ্যান  বলছে, আগের বছরের তুলনায় ২০১৮ সালে প্রবাসী মৃত্যু বেড়েছে প্রায় ১২ শতাংশ।  যদিও এটি দেশে ফেরত আসা বৈধ শ্রমিকের মরদেহের হিসাবমাত্র। বেশির ভাগ  ক্ষেত্রেই এসব শ্রমিকের মৃত্যুর কারণ স্ট্রোক ও হৃদরোগ। এদের অধিকাংশেরই  বয়স ২৫-৩৫ বছরের মধ্যে।

অভিবাসন ব্যয়ের তুলনায় কম আয়ের কারণে মানসিক চাপ ও দীর্ঘদিন স্বজনদের  থেকে বিচ্ছিন্ন থাকার ফলে একাকিত্বই প্রবাসী শ্রমিকদের স্ট্রোক ও হৃদরোগের  প্রধান কারণ বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। পাশাপাশি দৈনিক ১২-১৮ ঘণ্টা  পরিশ্রম, অপর্যাপ্ত খাবার ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে গাদাগাদি করে থাকার  কারণেও রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন তারা।

হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. এপিএম সোহরাবুজ্জামান বলেন,  প্রবাসীরা বিভিন্ন ধরনের মানসিক চাপের মধ্যে থাকায় তাদের মধ্যে হৃদরোগে  আক্রান্তের হার বেশি। এছাড়া দেশের বাইরে যাওয়ার পর তাদের খাদ্যাভ্যাসেও  পরিবর্তন আসে, যা হৃদরোগের জন্য দায়ী। আবার অনেকে জানেন না, কোথায় কীভাবে  চিকিৎসা নিতে হয়। কোনো ধরনের চেকআপের মধ্যে না থাকায় অনেকে হৃদরোগে ভুগলেও  চিকিৎসা না করায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

সবসময় চাপের মধ্যে থাকায় প্রবাসীদের মধ্যে স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার হারও  বেশি বলে জানান ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিউরোসার্জারি বিভাগের  অধ্যাপক ডা. রাজিউল হক।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ওয়েজ আর্নার্স  কল্যাণ বোর্ডের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৮ সালে মোট ৩ হাজার ৭৯৩ বাংলাদেশী কর্মীর  মরদেহ দেশে আনা হয়েছে। ২০১৭ সালে এ সংখ্যা ছিল ৩ হাজার ৩৮৭। এছাড়া ২০১৬  সালে ৩ হাজার ৪৮১, ২০১৫ সালে ৩ হাজার ৩০৭ ও ২০১৪ সালে ৩ হাজার ৩৩৫ জন বৈধ  কর্মীর মরদেহ দেশে এসেছিল। অধিকাংশের ক্ষেত্রেই মৃত্যুর কারণ হিসেবে বলা  হয়েছে স্ট্রোক ও হৃদরোগ।

২০১৮ সালে ৩ হাজার ৬৭৬ জন বৈধ কর্মীর পাশাপাশি অবৈধভাবে কর্মরত ১১৭ জনের  মরদেহও দেশে এসেছে। এর মধ্যে ৩ হাজার ৩৫৩টি মরদেহ এসেছে হযরত শাহজালাল  আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে। এছাড়া ৩৭৪টি মরদেহ এসেছে চট্টগ্রামের শাহ আমানত  আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও ৬৬টি সিলেটের ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে।  বেশির ভাগ মরদেহই এসেছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো থেকে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি  এসেছে সৌদি আরব থেকে। সৌদি আরবের পর বেশি মরদেহ এসেছে মালয়েশিয়া থেকে।

সুস্থ দেহে দেশ থেকে যাওয়ার পরও প্রবাসী শ্রমিকদের স্ট্রোক ও হৃদরোগে  মৃত্যু কেন বাড়ছে, তা খতিয়ে দেখা উচিত বলে মনে করেন রিফিউজি অ্যান্ড  মাইগ্রেটরি মুভমেন্টস রিসার্চ ইউনিটের (রামরু) পরিচালক ড. সি আর আবরার। তিনি বলেন, প্রবাসী শ্রমিকরা বিদেশে পাড়ি দেয়ার আগে মেডিকেল  চেকআপ করে যাচ্ছেন। সে সময় কিন্তু হৃদরোগ ধরা পড়ছে না। বিদেশে পৌঁছার পরও  স্বাস্থ্য পরীক্ষায় এ ধরনের কোনো উপসর্গ পাওয়া যাচ্ছে না। এর পরও প্রবাসী  শ্রমিকদের অস্বাভাবিক মৃত্যু কেন বাড়ছে, সেটা খতিয়ে দেখা উচিত। আর যেসব  মৃত্যুর কারণ হিসেবে দুর্ঘটনা বা অন্যান্য রোগের কথা বলা হচ্ছে, সেগুলো  কতটা ঠিক, তাও বিবেচনা করতে হবে। কারণ বিমানবন্দরে মরদেহ আসার পর স্বজনরা  প্রকৃত কারণ খোঁজার চেয়ে তাড়াতাড়ি দাফনেই বেশি গুরুত্ব দেন।

বেশি ব্যয়ে বিদেশে গিয়ে প্রত্যাশিত আয় করতে না পারার কারণেও মানসিক চাপে  থাকছেন অনেকে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, অধিকাংশ প্রবাসী শ্রমিকই দালালের  প্রলোভনে বেশি ব্যয়ে বিদেশে যাচ্ছেন। কিন্তু সেখানে গিয়ে বেশির ভাগ সময়ই  তারা প্রত্যাশা অনুযায়ী বেতন পাচ্ছেন না, যা তাদের সবসময় মানসিক চাপের  মধ্যে রাখছে। আকস্মিক মৃত্যুর অন্যতম কারণ এটি। অন্যদিকে প্রতিবেশী দেশ,  যেমন প্রবাসী ভারতীয় ও নেপালের নাগরিকদের আকস্মিক মৃত্যুর হার কম। কারণ  সেসব দেশের অভিবাসন ব্যয় বাংলাদেশের তুলনায় অনেক কম।

এমএস কল্লোল ট্রেডার্সের মাধ্যমে ২০০৪ সালে কুয়েতে অভিবাসী হন পাবনা  জেলার কালাম আলী। সেখানকার একটি কোম্পানিতে গাড়িচালক হিসেবে কর্মরত ছিলেন  তিনি। পরিবারের সদস্যদের ভাষ্য, প্রত্যাশিত আয় না হওয়ায় সবসময় মানসিক চাপে  থাকতেন এ কুয়েত প্রবাসী। এ অবস্থায় ২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর কর্মরত  অবস্থায় স্ট্রোক করেন।

তবে অভিবাসন খরচ কমিয়ে বিদেশে কর্মীদের জন্য ভালো কাজের পরিবেশ তৈরিতে  সরকার সচেষ্ট বলে জানান প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের  ঊর্ধ্বতন একজন কর্মকর্তা। তিনি বলেন, দালালের প্রলোভনে না পড়ে দক্ষতা নিয়ে  বিদেশে গেলে ভালো বেতনের চাকরির নিশ্চয়তা থাকে। এ বিষয়ে বিদেশ গমনেচ্ছুদের  সচেতন করতে মন্ত্রণালয় কাজ করছে।

প্রবাসে মারা যাওয়া শ্রমিকদের মরদেহ দেশে আনতে সহযোগিতা করে প্রবাসী  কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ড। মৃত ব্যক্তিদের  পরিবারগুলোকে দাফনের জন্য বিমানবন্দরে প্রবাসী কল্যাণ বোর্ড প্রথমে ৩৫  হাজার ও পরে ৩ লাখ টাকা আর্থিক অনুদান দেয়। প্রবাসে মৃত্যুবরণকারী কর্মীদের  পরিবারগুলোকে ২০১৮ সালে ১১৮ কোটি ৯৩ লাখ ৬০ হাজার টাকা অনুদান দিয়েছে  বোর্ড। ২০১৭ সালে এর পরিমাণ ছিল ১০১ কোটি ১৬ লাখ ৩০ হাজার টাকা।

মনজুরুল ইসলাম

সংশ্লিষ্ট খবর