মঙ্গলবার ১১ই ডিসেম্বর ২০১৮ |

সমাধান খুঁজতে গিয়ে কাতারের সঙ্গে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর চুক্তি

 মঙ্গলবার ১১ই জুলাই ২০১৭ সন্ধ্যা ০৭:৫৮:২০
সমাধান

গালফ বাংলা: মধ্যপ্রাচ্য সংকট সমাধানে আলোচনার দ্বার খুলতে গিয়ে সন্ত্রাসবাদে অর্থায়নের বিরুদ্ধে লড়তে কাতারের সঙ্গে এক চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন। মঙ্গলবার রাজধানী দোহায় কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের সময় তিনি ওই চুক্তিতে সই করেন।

দোহায় এক যৌথ সংবাদ সম্মলনে কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন আব্দুল রহমান আল-থানি ও মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন চুক্তিতে স্বাক্ষরের ঘোষণা দিয়েছেন। আরব উপসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলোর সঙ্গে কাতারের কূটনৈতিক সংকট সমাধানের উপায় খুঁজতে চারদিনের সফরে মধ্যপ্রাচ্যে রয়েছেন টিলারসন।

সংবাদ সম্মেলনে কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বলেন, কাতারের বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক অবরোধ ও সংকটের সঙ্গে এই চুক্তির সম্পর্ক নেই। তিনি বলেন, আজ যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষরে কাতারই প্রথম দেশ। আমরা কাতারের প্রতি অবরোধ আরোপকারী দেশগুলোকে আমাদের এই স্বাক্ষর স্মারকে যোগ দেয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

সন্ত্রাসবাদে অর্থায়নের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের এই চুক্তিতে স্বাক্ষর করায় কাতারের প্রশংসা করেছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের একটি লক্ষ্য রয়েছে : পৃথিবীর বুক থেকে সন্ত্রাসবাদকে মুছে ফেলা।’

সন্ত্রাসবাদে অর্থায়নের উৎস খুঁজে বের করতে যুক্তরাষ্ট্র এবং কাতার একসঙ্গে আরো বেশি কাজ করবে। একইসঙ্গে পারস্পরিক সহযোগিতা ও তথ্য বিনিময়ে করে এই অঞ্চল এবং যুক্তরাষ্ট্রকে নিরাপদ রাখতে কাজ করবে।

এর আগে দোহায় পৌঁছে রেক্স টিলারসন বলেন, আরব প্রতিবেশিদের সঙ্গে মাসব্যাপি চলমান কূটনৈতিক সংকটে কাতার সরকারের অবস্থান যুক্তিসঙ্গত। তিনি বলেন, আমি মনে করি কাতার তার অবস্থানে বেশ পরিষ্কার; যা অত্যন্ত যুক্তিসঙ্গত।

মধ্যপ্রাচ্য সংকটের সমাধানে সহায়তার লক্ষ্যে চারদিনের সফরের দ্বিতীয় দিনে কাতারে পৌঁছেছেন রেক্স টিলারসন। সেখানে তিনি কাতারের আমির ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন তিনি। পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন আব্দুল রহমান আল-থানির সঙ্গে বৈঠকে বসার আগে দেশটির আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানির সঙ্গে বৈঠক করেন রেক্স টিলারসন।

এর আগে সোমবার কুয়েতের আমির শেখ সাবাহ আল আহমদ আল সাবাহ ও দেশটির অন্যান্য জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে বসে মার্কিন এই পররাষ্ট্রমন্ত্রী। বৈঠকে কুয়েতের আমির মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে বলেন, আমরা এই সংকট সমাধানের চেষ্টা করছি; যা শুধুমাত্র আমাদেরকেই উদ্বিগ্ন করছে না বরং পুরো বিশ্বই উদ্বিগ্ন।

বুধবার মার্কিন এই পররাষ্ট্রমন্ত্রী সৌদি আরবের জেদ্দায় সম্পর্কচ্ছেদকারী সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন ও মিসরের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন।

কাতারের এ সংকট নিরসনে সৌদি নেতৃত্বাধীন দেশগুলোর সঙ্গে আলোচনা করতে গত শুক্রবার রিয়াদে যান ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বোরিস জনসন। উপসাগরীয় অঞ্চলের উত্তেজনা কমিয়ে আনতে কুয়েত, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও কাতার সফর করেন তিনি।

গত ৫ জুন সৌদি আরব ও এর মিত্র দেশগুলো উপসাগরীয় প্রতিবেশি কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্কচ্ছেদের ঘোষণা দেয়। এর জেরে গত দশকের মধ্যে নজিরবিহীন কূটনৈতিক সংকট দেখা দেয় উপসাগরীয় অঞ্চলে। কাতারে বিরুদ্ধে চরমপন্থা সমর্থন ও সৌদি আরবের আঞ্চলিক প্রতিদ্বন্দ্বী ইরান ঘণিষ্ঠতার অভিযোগ আনা হয়। কাতার এ অভিযোগ প্রত্যাখান করেছে।


//এইচএন

সূত্র : আল-জাজিরা

সংশ্লিষ্ট খবর