সোমবার ২৩শে সেপ্টেম্বর ২০১৯ |

কাতারে গৃহকর্মীর যা জানা প্রয়োজন

 বৃহঃস্পতিবার ২৯শে আগস্ট ২০১৯ দুপুর ১২:৩২:১২
কাতারে

কাতারে কর্মরত রয়েছেন বিপুলসংখ্যক গৃহকর্মী। কিন্তু অনেকে নিজেদের প্রাপ্য অধিকার ও সুরক্ষার নিশ্চয়তা সম্পর্কে অবগত নন। আজকের আলোচনা তাই গৃহকর্মী সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয়ে।

যে পুরুষ বা নারী কোনো ঘরে গৃহকর্তার অধীনে কাজ করেন, আইনের ভাষায় তাকে গৃহকর্মী বলা হয়ে থাকে। যেমন, গাড়িচালক, বাবুর্চি, মালি, আয়া- ইত্যাদি।

কাতার শ্রম কর্তৃপক্ষের অনুমোদিত চুক্তিপত্র ছাড়া কোনো গৃহকর্মীকে কাজে ব্যবহার করা যাবে না। যদি কোনো গৃহকর্তা চুক্তিপত্র ছাড়া গৃহকর্মীকে দিয়ে কাজ করান, তবে তিনি অনধিক পাঁচ হাজার কাতারি রিয়াল অর্থদন্ডে দন্ডিত হবেন।

চুক্তিপত্র হতে হবে সরকারি ফর্ম অনুসারে এবং এর তিনটি অনুলিপি করতে হবে। একটি গৃহকর্মীর কাছে, একটি গৃহকর্তার কাছে এবং আরেকটি শ্রম মন্ত্রণালয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দিতে হবে।

মূল চুক্তিপত্রটি আরবি ভাষায় হতে হবে এবং এর সঙ্গে গৃহকর্মীর অনুধাবনযোগ্য ভাষার অনুবাদ সংযুক্ত করা যাবে। অনুদিত এবং মূল চুক্তিপত্রে কোনো বিষয়ে বিরোধ হলে আরবিতে লেখা মূল চুক্তিপত্রে উল্লেখিত বিষয়টি চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে।

চুক্তিপত্রে স্পষ্টভাবে যেসব বিষয় উল্লেখ করতে হবে, এর মধ্যে রয়েছে-

  1. গৃহকর্তার নাম, জাতীয়তা এবং বাসস্থানের ঠিকানা।
  2. গৃহকর্মীর নাম, জাতীয়তা এবং বাসস্থানের ঠিকানা।
  3. চুক্তিপত্রের মেয়াদ শেষের তারিখ।
  4. গৃহকর্মী যেসব কাজ করবেন, সেগুলোর ধরণ এবং প্রকৃতি।
  5. কাজ শুরুর তারিখ এবং যাচাইকাল থাকলে এর উল্লেখ।
  6. চুক্তির নবায়ন এবং চাকরি থেকে বরখাস্তের বিষয়।
  7. গৃহকর্মীর বেতন এবং তা পরিশোধের মাধ্যম।

মনে রাখতে হবে, কাতারের শ্রম আইন অনুসারে- ১৮ বছরের কম বা ৬০ বছরের বেশি কাউকে গৃহকর্মী হিসেবে নিয়োগ দেওয়া যাবে না। যদি কোনো গৃহকর্তা এই আইন লঙ্ঘন করেন, তবে তিনি সর্বোচ্চ ১০ হাজার রিয়াল অর্থদন্ডে দন্ডিত হবেন।

তবে বিশেষ কোনো ক্ষেত্রে শ্রমমন্ত্রী বা তার প্রতিনিধি চাইলে গৃহকর্মীদের বয়সের বিষয়টি বিবেচনা করতে পারেন।

কাতারে একজন গৃহকর্মী তার গৃহকর্তার কাছ থেকে যা যা পাবেন, এর মধ্যে রয়েছে- উপযুক্ত খাবার এবং বাসস্থান, প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যসেবা, ওষুধপত্র এবং চিকিৎসা ব্যবস্থা- যদি গৃহকর্মী কাজের সময় বা কাজের কারণে অসুস্থ হয়ে পড়েন। এসবের কোনো আর্থিক দায় গৃহকর্মী বহন করবে না।

গৃহকর্মীর সম্মান ও নিরাপত্তা বজায় রেখে তার সঙ্গে আচার আচরণ বজায় রাখা গৃহকর্তার উপর অবশ্য কর্তব্য। গৃহকর্মীকে কোনোভাবে অপমান বা তাকে শারীরিকভাবে কিংবা মানসিকভাবে আঘাত বা কষ্ট দেওয়া আইনত দন্ডনীয় অপরাধ। অসুস্থতাবশত ছুটির সময়ে গৃহকর্মীকে কাজ করতে বাধ্য করা যাবে না।

প্রতিদিন বিশ্রামের জন্য নির্ধারিত সময়ে বা সাপ্তাহিক ছুটির দিনে কোনো গৃহকর্মীকে কাজ করতে বলা যাবে না। তবে যদি চুক্তিপত্রে এই বিষয়ে বাড়তি কিছু উল্লেখ থাকে, সেটি ভিন্ন বিষয়।

গৃহকর্মীকে অবশ্যই প্রতি মাসের শেষে কাতারি মুদ্রায় তার পারিশ্রমিক পরিশোধ করতে হবে। কোনোভাবেই যেন তা পরবর্তী মাসের তিন তারিখের চেয়ে দেরি না হয়। গৃহকর্মীর বেতন তার নিজস্ব ব্যাংক একাউন্টে বা সরাসরি নগদ অর্থ দিয়ে পরিশোধ করতে হবে।

 নগদ অর্থে বেতন পরিশোধের সময় অবশ্যই আলাদা কাগজে স্বাক্ষর করে তা জমা রাখতে হবে। এই নিয়ম লঙ্ঘন করলে আইনত দশ হাজার রিয়াল পর্যন্ত দন্ড দেওয়া হতে পারে।

আরও জেনে রাখুন

যেসব কারণে কাতার পুলিশ সরাসরি দেশে পাঠিয়ে দেয়

কফিলের কোম্পানি ছাড়া অন্য কোথাও কাজ করার নিয়ম

কাজ করতে গিয়ে আহত হলে কীভাবে ক্ষতিপূরণ পাবেন

কাতারে কাজ করে বেতন না পেলে কী করবেন?

কাতারে থাকতে হলে জেনে রাখা ভালো

কোম্পানির কাছ থেকে টিকেট পাওয়ার নিয়ম

কোথায় গাড়ি থামালে কত জরিমানা

৯৯৯ এ কখন এবং কীভাবে সাহায্য চাইবেন

নিজের আইডি দিয়ে অন্যের যেসব উপকার করবেন না

প্রবাসীদের লাগেজে সরকারের নতুন নিয়ম

নির্মাণ শ্রমিকদের জন্য যা যা করণীয়

হঠাৎ আঘাত পেলে

ফ্রি ভিসার নামে প্রতারণা থেকে সাবধান

জেনে নিন বিদেশে চাকরি করতে গেলে আপনাকে কি কি করতে হবে?

প্রবাসীদের সন্তানদের জন্য বৃত্তির নিয়ম ও আবেদনপত্র

তামীম রায়হান

কাতার প্রবাসী লেখক, সাংবাদিক

সংশ্লিষ্ট খবর