শুক্রবার ১৮ই অক্টোবর ২০১৯ |

হাইজাম্পে কাতারের সোনা

 রবিবার ৬ই অক্টোবর ২০১৯ রাত ০১:২৩:১০
হাইজাম্পে

এখন পর্যন্ত ৯টি অলিম্পিকে অংশ নিয়েছে কাতার, সেরা সাফল্য রিও অলিম্পিকের হাইজাম্পে মুতাজ ইসা বারসিমের রুপা। মধ্যপ্রাচ্যের তেল সমৃদ্ধ এই দেশ আগামী ফুটবল বিশ্বকাপের আয়োজক। তাই ফুটবল নিয়ে উন্মাদনা বেশি থাকলেও বারসিমের জনপ্রিয়তাও কম নয়। কাল দোহায় বিশ্ব অ্যাথলেটিকস চ্যাম্পিয়নশিপে স্টেডিয়ামের গ্যালারি কানায় কানায় ভরে উঠেছিল বারসিমের লাফ দেখার জন্যই!  এমনকি দেশের শাসক শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানিও উপস্থিত ছিলেন স্টেডিয়ামে। 

সবাইকে উৎসবে মেতে ওঠার সুযোগ করে দিয়েই হাইজাম্পে সোনা জিতলেন বারসিম,  তিনি লাফিয়েছেন ২.৩৭ মিটার। বিশ্বরেকর্ড হয়েছে মেয়েদের ৪০০ মিটার হার্ডলসে।  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দালিয়াহ মোহাম্মদ ৫২.১৬ সেকেন্ডে দৌড় শেষ করে গড়েছেন নতুন বিশ্বরেকর্ড। ছেলেদের ৪০০ মিটারে সোনা জেতা বাহামার স্টিভেন গার্ডিনার তাঁর এই পদক উৎসর্গ করেছেন কিছুদিন আগেই হারিকেন ডোরিয়ানের আঘাতে  ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের উদ্দেশে।

ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ড ইভেন্টে মার্কিনি, কানাডিয়ানদের আধিপত্য ঘুচিয়ে অনেক দিন ধরেই ক্যারিবীয়দের জয়জয়কার। আধুনিক অলিম্পিকের ইতিহাসে প্রথম এশীয় ক্রীড়াবিদ হিসেবে হাইজাম্পে পদক জয়ের রেকর্ড ছিল ফিলিপাইনের সাইমন তোরিদোর, জিতেছিলেন ১৯৩২ সালের লস অ্যাঞ্জেলেস অলিম্পিকে। এরপর ২০১২ সালের লন্ডন অলিম্পিকে বারসিমের ব্রোঞ্জ জয়ের মাঝে পোডিয়ামে দাঁড়াতে পারেননি আর কোনো এশিয়ান। এরপর ২০১৬ সালের রিও অলিম্পিকে বারসিম জিতেছেন রুপা। আর এবার বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে সোনা জিতে টোকিও অলিম্পিকে সোনা জেতার দাবিটা জোরালো করে তুলেছেন সুদানি বংশোদ্ভূত এই হাইজাম্পার। অবশ্য মাঝপথে ২.৩৩ মিটার উচ্চতা দুইবারের চেষ্টায় ডিঙাতে পারেননি বারসিম, তৃতীয় ও চূড়ান্ত  প্রচেষ্টায় সফল হয়েছেন এবং লাফিয়েছেন এর চেয়েও বেশি উচ্চতায়। 

কাতার ডেস্ক

সংশ্লিষ্ট খবর