শুক্রবার ৬ই ডিসেম্বর ২০১৯ |

যেভাবে স্বল্প ব্যয়ে সিশেলস যাওয়া যাবে

 সোমবার ২৮শে অক্টোবর ২০১৯ রাত ০১:৪০:২৬
যেভাবে

বাংলাদেশের সঙ্গে পূর্ব আফ্রিকার দেশ সিশেলসে জনশক্তি পাঠানোর বিষয়ে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। নানা অনিয়মের কারণে প্রায় এক বছর ধরে কর্মী নেওয়া বন্ধ রাখার পর সমস্যার সমাধান করে আবারও এ বিষয়ে শ্রম সহায়তা চুক্তি করেছে দুই দেশ।

রবিবার (২৭ অক্টোবর) বিকালে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান  মন্ত্রণালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে এর বিস্তারিত তুলে ধরেন মন্ত্রণালয়ের সচিব সেলিম রেজা। এসময় প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী ইমরান আহমদ উপস্থিত ছিলেন।

সেলিম রেজা বলেন, চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে দুই দেশই আশাবাদ ব্যক্ত করে যে, চুক্তিটি স্বাক্ষরের ফলে দু’দেশের মধ্যে শ্রম বাজারসহ ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষেত্রেও দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতার নতুন দ্বার উন্মোচিত হবে। স্বাক্ষরিত চুক্তির আওতায় বাংলাদেশ পক্ষে শুধুমাত্র রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন/সরকারি রিক্রুটমেন্ট এজেন্ট হিসেবে বাংলাদেশ ওভারসীজ এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড সার্ভিসেস লিমিটেড (বোয়েসেল) এবং জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি) সিশেলসে কর্মী পাঠাবে। তাই সিশেলস গমনেচ্ছু শ্রমিকদের অন্য কোনও রিক্রুটমেন্ট এজেন্ট কিংবা কোনও ব্যক্তির মাধ্যমে দেশটিতে কাজের জন্য না যাওয়ার আহ্বান জানান তিনি। একইসঙ্গে সিশেলসে যাওয়ার জন্য বোয়েসেল ও বিএমটি ছাড়া কারও সঙ্গে কোনও প্রকার আর্থিক লেনদেন না করার পরামর্শ দেন সচিব।

সেলিম রেজা জানান, সিশেলস এ প্রায় আড়াই হাজার বাংলাদেশি কর্মী কর্মরত রয়েছেন। মূলত নির্মাণ শিল্পে অধিকাংশ কর্মী কাজ করে থাকেন। এছাড়া হোটেল,  টুরিজম, স্বাস্থ্যসেবা, হাউজ কিপিং, কুক, ভিলা অ্যাটেন্ডডেন্ট, কৃষি খামার, পোল্টি খামার প্রভৃতি খাতেও বাংলাদেশি কর্মীরা সেখানে কাজ করছেন। মাছ ধরা ও মৎস্য প্রক্রিয়াজাতকরণ কারখানা, আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং টুরিজম খাতে বাংলাদেশি কর্মীদের কাজ করার সুযোগ রয়েছে দেশটিতে।

সিশেলস গমনেচ্ছু কর্মীদের যা যা প্রয়োজন হবে:

চুক্তিপত্রে (এমপ্লয়মেন্ট কন্ট্রাক্ট) উল্লেখিত চাকরির মেয়াদ অনুসারে বৈধ পাসপোর্ট, পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট, বিএমইটি কর্তৃক ইস্যুকৃত  ছাড়পত্র/স্মার্ট কার্ড, সিশেলসের ইমিগ্রেশন ডিপার্টমেন্ট থেকে ইস্যু করা ও বাংলাদেশে অবস্থিত সিশেলস কনস্যুলেটের এনডোর্স করা জিওপি (গেইনফুল অকুপেশনাল পারমিট), সিশেলসের এমপ্লয়মেন্ট ডিপার্টমেন্ট কর্তৃক সত্যায়িত এমপ্লয়মেন্ট কন্ট্রাক্টসহ আনুষাঙ্গিক অন্য কাগজপত্র।

সচিব আরও জানান, উল্লিখিত চুক্তির আওতায় স্বল্প অভিবাসন ব্যয়ে দক্ষ ও যোগ্য কর্মীরা সিশেলস যেতে পারবেন। এক্ষেত্রে একটি সার্ভিস চার্জ নির্ধারণ করা হবে, যার পরিমাণ খুবই অল্প হবে।

তিনি জানান, সিশেলসে কাজ করে একজন কর্মী মাসে ৪০০ থেকে ৫০০ ডলার আয় করতে পারবেন।

সংশ্লিষ্ট খবর