শুক্রবার ১৫ই নভেম্বর ২০১৯ |

বাংলাদেশে জ্বালানি খাতে বড় বিনিয়োগ করতে চায় কাতার

 বুধবার ৩০শে অক্টোবর ২০১৯ বিকাল ০৫:৫৮:৩৬
বাংলাদেশে

বাংলাদেশের জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে কাজ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে সফররত কাতারি জ্বালানী প্রতিমন্ত্রী সাদ শেরিদা আল-কাবি।

তিনি বলেন, ‘আমরা দু’দেশের পারস্পারিক স্বার্থে বাংলাদেশের জ্বালানী ও বিদ্যুৎ খাতে কাজ করতে আগ্রহী।’

কাতারের প্রতিমন্ত্রী আজ বিকেলে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবনে সাক্ষাৎকালে এ আগ্রহের কথা জানান।

বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের একথা জানান। গত এক দশকে বাংলাদেশের দ্রুত উন্নয়নের বিষয়ে উল্লেখ করে সাদ শেরিদা আল-কাবি বলেন, ‘আপনাদের যত উন্নতি তত বেশি শক্তি দরকার।’

কাতারের প্রতিমন্ত্রী বলেন, ২০২২ সালে কাতারে অনুষ্ঠিতব্য বিশ্বকাপ ফুটবল- এর আগে তারা আরো বিদ্যুৎ উৎপাদনের উদ্যোগ নিয়েছে।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়নের ক্ষেত্রে কাতারের সমর্থন অব্যাহত থাকবে। প্রেস সচিব জনান, প্রধানমন্ত্রী তাঁর কাতার সফরের কথা স্মরণ করেছেন।

প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী, মূখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান ও ঢাকায় নিযুক্ত কাতারের রাষ্ট্রদূত আহমেদ বিন মোহাম্মদ আল-দেহাইমিএ সময় উপস্থিত ছিলেন। 

পরে জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু বলেন,  বাংলাদেশের জ্বালানি খাতে বড় বিনিয়োগ করতে চায় কাতার। কাতারের সঙ্গে  এলএনজি সরবরাহের সমঝোতা স্মারকের আরও কিছু বিষয় সংযুক্ত করতে চায় তারা। এর মধ্যে পায়রা ও মাতারবাড়িতে এলএনজিভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র এবং টার্মিনাল করার বিষয়টিও রাখার অনুরোধ করেছে। এর বিপরীতে বাংলাদেশে সরবরাহ করা এলএনজির দর কমানোর বিষয়টি বিবেচনার অনুরোধ জানায় বাংলাদেশ। বিষয়টি বিবেচনার আশ্বাস দিয়েছে কাতার।

বুধবার (৩০ অক্টোবর) সচিবালয়ে কাতারের জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী সাদ সারিদা আল কাবির বাংলাদেশের প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করেন। বৈঠকে কাতারের জ্বালানি প্রতিমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীন ৮ সদেস্যের প্রতিনিধি ছিল। বাংলাদেশের প্রতিমন্ত্রী ছাড়াও ছিলেন পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান রুহুল আমিন, পরিচালক (প্ল্যানিং) আইয়ুব খানসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকের পর সংবাদ সম্মেলনে নসরুল হামিদ বলেন, ‘দু’দেশের জ্বালানি খাতের বিষয়ে দ্বিপক্ষীয় আলোচনা হয়েছে। কাতারের জ্বালানি প্রতিমন্ত্রীর বাংলাদেশে এটাক প্রথম সফর। তারা আমাদের দেশে যে গ্যাস সরবরাহ করবে তা আরও নিরবচ্ছিন্নভাবে সরবরাহে সহযোগিতা করার আগ্রহ দেখিয়েছে।’

তিনি জানান, কাতারের সঙ্গে  যে সমঝোতা চুক্তি আছে সেটির সময় বাড়াতে চায় তারা। এছাড়া পায়রায় ল্যান্ডবেইজড এলএনজি টার্মিনাল এবং বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করতে চায়। এছাড়া মাতারবাড়িতে এলএনজি টার্মিনাল স্থাপনে দরপত্রে অংশ নিয়েছে তারা। ১২টি কোম্পানি সেখানে আগ্রহ দেখিয়েছে। দেশে দীর্ঘমেয়াদি বড় বিনিয়োগ করতে চায় কাতার।

সংশ্লিষ্ট খবর