শুক্রবার ৬ই ডিসেম্বর ২০১৯ |

তুরস্কের প্রেসিডেন্টকে কাতারি আমিরের উষ্ণ অভ্যর্থনা (ভিডিও)

কাতার ডেস্ক |  সোমবার ২৫শে নভেম্বর ২০১৯ বিকাল ০৫:২২:১৭
তুরস্কের

কাতারে আজ সাক্ষাত ও বৈঠক করেন কাতারের আমির ও তুরস্কের রাষ্ট্রপতি

২০১৭ সালের ৫ জুন কাতারের সঙ্গে সব ধরণের সম্পর্ক ছিন্নের ঘোষণা দিয়ে অবরোধ আরেপ করে সৌদিআরব, আরব আমিরাত, বাহরাইন এবং মিসর। আকস্মিক এমন দুঃসময়ে কাতারের পাশে এসে দাঁড়ায় তুরস্ক। তাৎক্ষণিক পণ্য রপ্তানিসহ নানারকম সহযোগিতার হাত বাড়ায় দেশটি। সেই দুর্দিনের এই উপকারী বন্ধুকে ভুলেনি কাতার।

বর্তমানে তুরস্কে কাতারের বিনিয়োগের পরিমাণ ২৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। আর কাতারে তুরস্কের বিনিয়োগের পরিমাণ ১৬ বিলিয়ন ডলার। 

কাতারে এখন তুরস্কের মালিকানাধীন কোম্পানির সংখ্যা ২৬টি। তবে কাতার-তুরস্ক যৌথ মালিকানায় পরিচালিত কোম্পানির সংখ্যা ২৪২ ছাড়িয়েছে। কাতারে ৮২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যয় করে নির্মাণ করা হচ্ছে তুর্কি হাসপাতাল। 

অন্যদিকে তুরস্কে কেবল ২০১৮ সালে ৭৬৪ টি আবাসিক প্লট কিনেছেন কাতারের নাগরিকরা। প্রায় ৯৭ হাজার কাতারি নাগরিক শুধু গতবছর তুরস্ক ভ্রমণ করেছেন, যার ফলে দেশটির পর্যটন খাত প্রতিনিয়ত সমৃদ্ধ হচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে, এ বছরের শেষনাগাদ এই সংখ্যা আরও অনেক বাড়বে। তুরস্কের তিনটি শহরে নিয়মিত ফ্লাইট পরিচালনা করছে কাতার এয়ারওয়েজ। অন্যদিকে কাতার থেকেও প্রচুর যাত্রী পরিবহন করছে টার্কিস এয়ারলাইন্স এবং পেগাসাস এয়ার।


দু দেশের মধ্যকার সম্পর্ক উন্নয়নে ২০১৪ সাল থেকে গত পাঁচ বছরে কাতার-তুরস্কের শীর্ষ নেতৃত্ব মোট ২৫ বার পারস্পরিক সাক্ষাত ও বৈঠকে মিলিত হয়েছেন। সেই হিসেবে তুরস্কের রাষ্ট্রপতি এরদোগানের সাথে কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আলথানির আজ ২৬তম বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আজ মূলত তুর্কি-কাতার হাই স্ট্র্যাটেজিক কমিটির পঞ্চম বৈঠকে যোগ দিতেই এরদোয়ানের এ সফর হচ্ছে। সফরে কাতারি আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানির সঙ্গে বৈঠক করেছেন তিনি। রাতে তার সম্মানে দেওয়া কাতারি আমিরের নৈশভোজেও অংশ নেবেন তুর্কি নেতা। এছাড়া কাতার-তুর্কি কম্বাইন্ড জয়েন্ট ফোর্স কমান্ডও পরিদর্শন করেছেন এরদোয়ান।

সফররত তুর্কি রাষ্ট্রপতির সাথে আছেন দেশটির একাধিক প্রভাবশালী মন্ত্রী ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

ভিডিও দেখুন: 

বিশেষজ্ঞদের মতে, কাতারের সঙ্গে তুরস্কের এই ঘনিষ্ঠতার পেছনে গুরুত্বপূর্ণ বেশ কিছু কারণ রয়েছে। ২০১৬ সালে তুরস্কের ব্যর্থ সেনা অভ্যুত্থানের সময় এরদোয়ানের পাশে দাঁড়ান কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল-থানি। অভ্যুত্থান চেষ্টার পর এরদোয়ানের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কাতারের বিশেষ বাহিনীর ১৫০ সদস্যের একটি ইউনিট তুরস্ক পাঠানো হয়। মুসলিম ব্রাদারহুড ও হামাসের মতো রাজনৈতিক দলগুলোর ব্যাপারে দুই দেশেরই দৃষ্টিভঙ্গি সৌদি আরবের বিপরীত মেরুতে।

২০১৫ সালের ১৮ জুন তারিক ইবন জিয়াদ সামরিক ঘাঁটিতে প্রথমবারের মতো অবস্থান নেয় তুর্কি সেনারা। এতে কাতারের সামরিক শক্তি বৃদ্ধি পায়। সন্ত্রাস দমন করে এই অঞ্চলে শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখার আশাবাদ ব্যক্ত করেন উভয় দেশের নেতারা।

২০১৭ সালে কাতারবিরোধী অবরোধ প্রত্যাহারে ১৩ দফা দাবি তুলে ধরে সৌদি জোট। এরমধ্যে একটি ছিল কাতার থেকে তুরস্কের সামরিক ঘাঁটি প্রত্যাহার করা। তবে সেই পথে হাঁটেনি দোহা। বরং ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে কাতারে নিযুক্ত তুর্কি রাষ্ট্রদূত বলেন, ভবিষ্যতে তারা কাতারে বিমান ও নৌবাহিনীও মোতায়েন করবে।

কাতারে এসেছে সউদি ফুটবল দল

কাতারে এসেছে আরব আমিরাতের ফুটবল দল

কাতার ডেস্ক

সংশ্লিষ্ট খবর