শনিবার ২৮শে মার্চ ২০২০ |

ভারতে করোনায় মৃত্যু ৭, আক্রান্ত ৪২৫

 সোমবার ২৩শে মার্চ ২০২০ রাত ০৮:১৭:০৮
ভারতে

ভারতের করোনাভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যা গত ২৪ ঘণ্টায় বেড়ে সাতে পৌঁছেছে। এর মাত্র একদিন আগেই এ সংখ্যা ছিল চার। রোববার মুম্বাই, পটনা ও সুরাট শহরে করোনায় আক্রান্ত আরও তিন রোগী মারা গেছেন।  ভারতে করোনায় এক দিনে একাধিক মৃত্যুর এটিই প্রথম ঘটনা।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানাচ্ছে, করোনায় দেশ জুড়ে সব মিলিয়ে মৃত ৭ জন এবং সুস্থ হয়ে ওঠা ২৪ জনকে ধরলে করোনার মোট সংক্রমণ এখন ৩৬০।

তবে ওয়ার্ল্ডোমেটারের হিসাব অনুযায়ী, ভারতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৪২৫ এবং মৃত্যু ৮।

বিহারে আজ প্রথম কোনও করোনায় রোগীর মৃত্যু হল। ৩৮ বছরের এক যুবক সম্প্রতি কাতার থেকে কলকাতা হয়ে বিহারে ফেরেন। মুঙ্গেরে নিজের গ্রামেই অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। দীর্ঘদিন ধরেই কিডনির অসুখে ভুগছিলেন ওই যুবক। পাটনার এমসে ভর্তি করার পরে তার লালারসের নমুনা রাজেন্দ্র মেমোরিয়াল রিসার্চ ইনস্টিটিউটে পাঠানো হয়। রিপোর্ট আসে যুবকের মৃত্যুর পরে। দেখা যায়, যুবকের দেহে কোভিড-১৯ ছিল। করোনায় আক্রান্ত আরও এক নারী পাটনায় চিকিৎসাধীন।

মহারাষ্ট্রের মুম্বাই শহরে করোনায় মারা গেছেন দু’জন। এইচ এন রিলায়্যান্স হাসপাতালে মারা যান ৬৩ বছরের এক বৃদ্ধ। তার ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ ও অনিয়মিত হৃৎস্পন্দনের সমস্যা ছিল। সম্প্রতি প্রবল শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। মহারাষ্ট্রে মোট করোনা-সংক্রমণের সংখ্যা অন্তত ৬৭। পুণেতে আজ ১৪৪ ধারা জারি হয়েছে। 

রোববার গুজরাটেও করোনায় প্রথম মৃত্যু হয়েছে। ৬৭ বছরের এক বৃদ্ধ কিডনি ও শ্বাসের সমস্যা নিয়ে ১৭ মার্চ একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হন। ২১ মার্চ তার করোনা-পরীক্ষার পজ়িটিভ রিপোর্ট আসে। পুণের করোনা-আক্রান্ত নারীর মতো এই বৃদ্ধেরও বিদেশযাত্রার কোনও রেকর্ড এখনও পাননি রাজ্যের স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা। 

গুজরাতে যে ১৮ জনের করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছে, তাদের মধ্যে এই বৃদ্ধসহ তিনজন সুরাট শহরের বাসিন্দা। এই পরিস্থিতিতে ২৬ মার্চের রাজ্যসভা নির্বাচন পিছিয়ে দিতে রোববার নির্বাচন কমিশনকে আর্জি জানিয়েছে গুজরাট সরকার। রাজ্য বিধানসভার বাজেট অধিবেশন চলবে কি না, সেই সিদ্ধান্ত হবে সোমবার। 

আইসিএমআরের হিসেবে দেশ জুড়ে সংক্রমিতের সংখ্যা রোববার বেড়ে ৮১ জন। স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে, সারা দেশের সমস্ত বিমানবন্দরে মোট ১৫ লাখ ১৭ হাজার ৩২৭ জনকে পরীক্ষা করা হয়েছে। আধাসেনার সমস্ত বাহিনীকে বলা হয়েছে, ৫ এপ্রিল পর্যন্ত যারা যেখানে রয়েছে, সেখানেই থাকতে। প্রত্যেক জওয়ানকে ফর্ম ভরে জানাতে হচ্ছে, পরিবারের কেউ সম্প্রতি বিদেশে গিয়েছিলেন কি না।

কেরালায় রোববার ১৫ জনের দেহে কোভিড-১৯ পাওয়া গিয়েছে। সে রাজ্যে মোট সংক্রমণ ৫২টি। দিল্লিতে ২৯, উত্তরপ্রদেশে ২৭। জম্মু-কাশ্মীরে আক্রান্ত ৪, এছাড়া ভারতের করোনা সন্দেহে নজরবন্দি রয়েছেন আরও ৪০০০ মানুষ।


সংশ্লিষ্ট খবর