রবিবার ২৪শে জুন ২০১৮ |

কাতারে আমিরের ক্ষমায় মুক্তি পেলেন ২৪ বাংলাদেশি

 শুক্রবার ১৬ই জুন ২০১৭ রাত ০১:৪১:২৪
কাতারে

পবিত্র রমজান উপলক্ষে এ বছর কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আলথানি  বেশকিছু সাজাপ্রাপ্ত বন্দীদের ক্ষমা করেছেন। এঁদের মধ্যে ২২জন পুরুষ ও দুজন  মহিলাসহ মোট ২৪জন বাংলাদেশি প্রবাসী রয়েছেন। কাতারস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস  সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। আমিরের ক্ষমা ঘোষণার পর এদের দ্রুততম সময়ে  প্রয়োজনীয় আইনি প্রক্রিয়া অনুসরণ করে দেশে পাঠিয়ে দেওয়া হবে। কাতারে  প্রকাশিত প্রথম আলো সাপ্তাহিক উপসাগরীয় সংস্করণের চলতি সংখ্যায় এ খবর  প্রকাশিত হয়েছে।

ক্ষমাপ্রাপ্ত বন্দীদের মধ্যে ১০জন মাদক ও গাঁজা  সেবন, পরিবহন ও বাণিজ্য অপরাধে গ্রেফতার হয়ে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা ভোগ  করছিলেন। চুরি, দুর্নীতি, প্রতারণা ও কাগজপত্র জাল এবং চেক জালিয়াতি  সম্পর্কিত অপরাধে সাজাপ্রাপ্ত ছিলেন ১০জন। অবৈধ যৌন সম্পর্কের অভিযোগে আটক  ছিলেন দুজন নারী। কাতারে বৈধ কাগজপত্র ছাড়া বসবাসের অপরাধে একজন এবং  ব্যভিচারের অপরাধে আরও একজন বাংলাদেশি সাজা ভোগ করছিলেন।

দূতাবাস  সূত্রে জানা গেছে, কাতারের কেন্দ্রীয় কারাগারে মোট ১৪৬ জন সাজাপ্রাপ্ত  কয়েদি আছেন। এরা বিভিন্ন অপরাধে গ্রেফতার হয়ে নানা মেয়াদের সাজা ভোগ করছেন।  তবে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক বাংলাদেশি মাদক সংক্রান্ত মামলায় অভিযুক্ত হয়েছেন।  মারিজুয়ানা, ইয়াবা, ট্রামডলসহ নানা নেশাকর দ্রব্য আমদানি, বিক্রি, সেবন ও  পরিবহন করতে গিয়ে তারা বিভিন্ন সময়ে কাতারের আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর  হাতে ধরা পড়েন।

কাতারস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম কাউন্সেলর ড.  সিরাজুল ইসলাম বলেন, প্রতি বছর কাতারের আমির বিভিন্ন দেশের সাজাপ্রাপ্ত  আসামীদের ক্ষমা করেন। সেই ধারাবাহিকতায় এবছরও বাংলাদেশি ২৪জন আসামী ক্ষমার  তালিকাভুক্ত হয়েছেন। তবে জীবিকা অর্জনের জন্য কাতারে এসে অপরাধে জড়িয়ে পড়া  আমাদের ভাবমুর্তিকে ক্ষুন্ন করছে। বিশেষ করে মাদকের সমস্যা বিস্তার লাভ  করছে। এ ব্যাপারে সর্বস্তরের প্রবাসী বাংলাদেশিদের সচেতনতা কামনা করছি।

কাতারে  বর্তমানে প্রায় চার লাখ বাংলাদেশি কর্মী বাস করছেন। এই বিপুলসংখ্যক কর্মীর  মধ্যে আইনি সচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ এখন সময়ের দাবি  বলে মতামত ব্যক্ত করেছেন কয়েকজন প্রবাসী বাংলাদেশি ব্যক্তিত্ব। তাদের  ভাষায়, নইলে শুধু বাংলাদেশের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে, তা-ই নয়, বরং এর  বিরূপ প্রভাবে কাতারে বাংলাদেশের শ্রমবাজারও ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।  

কাতার প্রতিনিধি

সংশ্লিষ্ট খবর