অবিশ্বাস্যভাবে বাড়ছে কাতার রিয়ালের রেট: আজকের রেট ২৩.৯৫ টাকা

কাতারে বাংলাদেশি টাকায় রিয়ালের রেট আরও বেড়েছে। এর ফলে কিছুটা স্বস্তিতে দেশে টাকা পাঠোতে পারছেন প্রবাসীরা।

আজ বৃহস্পতিবার উরিদু মানিতে কাতার রিয়ালের সবচেয়ে বেশি রেট ২৩.৯৫ টাকা পাওয়া যাচ্ছে।

গালফ বাংলার পাঠকরা এক নজরে দেখে নিন বাংলাদেশি টাকায় কাতার রিয়ালের আজকের রেট।

আজকের হিসেবে রিয়ালের রেট সবচেয়ে বেশি দিচ্ছে আলদার ও এরাবিয়ান এক্সচেঞ্জে। ফলে এই এক্সচেঞ্জগুলো থেকে টাকা পাঠালে অন্যান্য একচেঞ্জের তুলনায় বেশ ভালো রেট পাবেন প্রবাসীরা।

তবে বছরের শেষদিকে কেন বাড়ছে রিয়ালের রেট? জানতে হলে এখানে ক্লিক করে ভিডিও দেখুন

আজ ২৩ নভেম্বর ২০২১ বৃহস্পতিবার কাতার থেকে উরিদু মানি অ্যাপ ব্যবহার করে যদি আ্পনি বাংলাদেশে কোনো ব্যাংক একাউন্টে বা সরাসরি বিকাশে অথবা নগদ তোলার জন্য কারও নামে টাকা পাঠান, তবে ভালো রেটে এই টাকা পাঠাতে পারবেন।

এক নজরে আজ কাতার রিয়ালের রেট

মানিগ্রাম (ব্যাংক একউন্টে)২৩ টাকা ৯০ পয়সা
আলদার এক্সচেঞ্জ২৩ টাকা ৯৫ পয়সা
আল জামান এক্সচেঞ্জ২৩ টাকা ৮৫ পয়সা
গালফ এক্সচেঞ্জ২৩ টাকা ৮৫ পয়সা
এরাবিয়ান এক্সচেঞ্জ২৩ টাকা ৯৫ পয়সা
লুলু এক্সচেঞ্জ২৩ টাকা ১৩ পয়সা
ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন২৩ টাকা ২৫ পয়সা
  • তবে মানিগ্রামের মাধ্যমে সরাসরি উত্তোলনের জন্য রিয়াল পাঠালে সেক্ষেত্রে প্রতি এক রিয়ালের বিনিময়ে পাওয়া যাবে ২৩.৩৮ টাকা।
  • আর উরিদু মানি অ্যাপ ব্যবহার করে বিকাশে টাকা পাঠালে প্রতি এক রিয়ালে পাওয়া যাবে ২৩.৭২ টাকা।

এছাড়া কাতারের অন্যান্য এক্সচেঞ্জে একেক রকম রেট হয়ে থাকে।

সাধারণত নামে নগদ পাঠালে একাউন্টে পাঠানোর রেটের চেয়ে তুলনামূলক কম রেট পাওয়া যায়। তবে উরিদু মানি অ্যাপ ব্যবহার করে মানিগ্রামের মাধ্যমে পাঠালে একইরকম রেট পাওয়া যায়।

আলজামান এক্সচেঞ্জে চলছে এক কেজি সোনা পুরস্কার জেতার বিশেষ সুযাগ

কাতার থেকে আলজামান এক্সচেঞ্জের মাধ্যমে টাকা পাঠালে আপনি পেয়ে যেতে পারেন এক কেজি সোনা।

১ অক্টোবর থেকে শুরু হয়ে ৩১ ডিসেম্বর অবধি চলবে এই সুযোগ। আলজামান এক্সচেঞ্জের যে কোনো শাখা বা মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করে টাকা পাঠালেও এই সুযোগ পেতে পারেন যে কেউ।

লজামান এক্সচেঞ্জের মাধ্যমে টাকা পাঠিয়ে জিতে নিতে পারেন এক কেজি সোনা পুরস্কার

মনে রাখবেন, কাতার থেকে হুন্ডিতে টাকা পাঠানো নিরাপদ নয়। তাই বৈধভাবে ব্যাংকিং চ্যানেলে টাকা পাঠান। এতে আপনার কষ্টার্জিত অর্থের নিরাপত্তা নিশ্চিত হওয়ার পাশাপাশি লাভবান হবে দেশ।

,