‘আফগানদের জব্দ সম্পদ ফেরত দিতে কাতারের চাপ

পাকিস্তান ও কাতার কর্তৃপক্ষ যুক্তরাষ্ট্রকে আহ্বান জানিয়েছে যেন দেশটি আফগানদের জব্দ সম্পদ ফেরত দেয়।

১০ সেপ্টেম্বর শুক্রবার আনাদোলু এজেন্সির প্রতিবেদনে এমন সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে।

পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশি ও কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন আব্দুর রহমান আল-সানি বলেছেন, আফগান জনগণের স্বার্থ রক্ষায় বেশি গুরুত্ব দিতে হবে।

কোনো দেশের নাম উল্লেখ না করেও পশ্চিমা শক্তিগুলোর দিকে ইঙ্গিত করে শাহ মাহমুদ কুরেশি বলেন, আপনারা যদি আফগানিস্তানে কোনো অর্থনৈতিক সাহায্য বা উন্নয়ন করতে প্রস্তুত না থাকেন তাহলে সেটা কোনো সমস্য নয়। আমরা এ বিষয়টাকে সঠিক বলেই মনে করি। কিন্তু, আফগানিস্তানের অর্থনীতি ধ্বংস করার জন্য কোনো পদক্ষেপ আপনারা নিতে পারেন না।

তিনি আরো বলেন, এখন আপনাদের উচিৎ তাদের সম্পদ ফেরত দেয়া। আফগানদের সম্পদ জব্দ করবেন না। আফগানদেরকে নিজেদের কল্যাণে তাদের সম্পদ ব্যবহার করতে দেন।

মার্কিন কর্তৃপক্ষ আফগানিস্তানের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ৯.৫ বিলিয়ন ডলারের সম্পদ জব্দ করেছে। তালেবান কর্তৃপক্ষ কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার দু’দিন পর ১৭ আগস্ট তারিখে যুক্তরাষ্ট্র এমন পদক্ষেপ নেয়। এদিকে আফগানিস্তানে সাহায্য বন্ধ করে দিয়েছে বিশ্বব্যাংক ও আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল।

শাহ মাহমুদ কুরেশি এ বিষয়ে বলেন, মানবিক সাহায্যে রাজনৈতিক শর্ত আরোপ করা উচিৎ না।

কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন আব্দুর রহমান আল-সানি বলেন, বিশ্ব একটি একতাবদ্ধ, স্থিতিশীল ও সমৃদ্ধ আফগানিস্তান চায়। রাজনৈতিক অঙ্গনে যাই হোক না কেন আফগানিস্তানের ব্যাপারে সকলের সহযোগিতামূলক আচরণ করা উচিৎ।

তিনি আরো বলেন, মানবিক সাহায্যের বিষয়টি যেন রাজনৈতিক উন্নয়নের সাথে সম্পর্কিত না হয়।

বিদেশী নাগরিকদের সরিয়ে নিতে সহযোগিতা করায় তিনি তালেবান কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ দেন। এছাড়া তিনি তালেবান কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান যেন তারা আফগানিস্তানে আরো সমন্বয় সাধন করেন এবং সকল আফগানকে ঐক্যবদ্ধ করেন।

এদিকে কাতারের এক শীর্ষ কূটনীতিক পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সাথে দেখা করেন আর আফগানিস্তান ও দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক নিয়ে মতবিনিময় করেন।

,