নেশার ট্যাবলেট নিয়ে ওমান এয়ারপোর্টে ধরা পড়লেন এক বাংলাদেশি

ওমানের মাস্কাট আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিপুল পরিমাণ নেশা জাতীয় ট্যাবলেটসহ এক বাংলাদেশিকে গ্রেফতার করেছে ওমান কাস্টমস পুলিশ।

২০ সেপ্টেম্বর বিমানবন্দর দিয়ে পাচারের সময় এসব নেশা জাতীয় ট্যাবলেট জব্দ করে কর্তৃপক্ষ।

এক বিবৃতিতে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, মাস্কাট আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নিরাপত্তা স্ক্যানিং মেশিনে কর্তব্যরত সদস্যরা একটি ব্যাগের মধ্যে নেশা জাতীয় ট্যাবলেটের বিশেষ করে ট্রামাডলের ট্যাবলেট মতো বস্তু দেখতে পান।

পরে ওই যাত্রীর ব্যাগ তল্লাশি করলে দেখা যায়, সুকৌশলে ‘স্কচ টেপ দিয়ে মোড়ানো অবস্থায় এই ট্যাবলেটগুলো পাচার করা হচ্ছিলো। বর্তমানে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছে পুলিশ।

এদিকে, খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সম্প্রতি মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে সিরাপ বা ট্যাবলেট জাতীয় ঔষধ নিয়ে প্রবাসীরা আটক হচ্ছেন।

কেউ জেনে আবার কেউ না যেনেই ওষুধ নিয়ে বিপদে পড়ছেন।

এ বিষয়ে অভিবাসন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আপনি যে দেশে যাচ্ছেন, সেদেশে নিজের সাথে ওষুধ নেওয়ার আগে জেনে নিন, সেই ওষুধের বিষয়ে কোন বিধি নিষেধ আছে কী না।

আপনি কি হোয়াটসঅ্যাপে সব খবর পেতে চান? তবে ক্লিক করুন এখানে।

অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় এমন কিছু ওষুধ আছে, যা বাংলাদেশে নিষিদ্ধ নয়, কিন্তু যে দেশে যাচ্ছেন, ওই দেশে এই ওষুধ নিষিদ্ধ।

সেক্ষেত্রে উক্ত প্রবাসী বাংলাদেশের বিমানবন্দরে কোনো প্রশ্নের সম্মুখীন না হলেও বিদেশের এয়ারপোর্টে যেয়ে সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন। উক্ত ওষুধ সেদেশে নিষিদ্ধ হলে প্রবাসীকে আইনি ঝামেলার মুখোমুখি হতে হবে।

আবার এর জন্য জেল কিংবা জরিমানাও হতে পারে।

বর্তমানে ওমানের সামাইল জেলে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কারাগারে আটক প্রবাসীদের মধ্যে প্রায় অধিকাংশই এই ধরনের মামলার আসামী।

আমদের ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন

আবার কেঁউ অন্যের মালামাল নিতে যেয়েও ফেঁসে গেছেন। দেখা গেছে, আঁচারের কথা বলে বোতলের মধ্যে ইয়াবা দেওয়া হচ্ছে। আর বিশ্বাস করে উক্ত আঁচারের বোতল আনতে যেয়ে নিরপরাধ হয়েও জেল খাটছেন অনেকেই।

এমতাবস্থায় ওষুধ বহনের ক্ষেত্রে স্বীকৃত ডাক্তার অথবা স্বীকৃত হাসপাতালের প্রেসক্রিপশন সঙ্গে রাখতে বলা হয়েছে।

এছাড়া অন্যের দেওয়া ওষুধ অথবা মালামাল সঙ্গে নেওয়া থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে।

এদিকে, পৃথক ঘটনায় দেশটির ওমানের মুসান্না অঞ্চলে প্রবাসীদের রুমে অভিযান চালিয়ে প্রচুর পরিমাণে ভেজাল সিগারেট জব্দ করা হয়েছে।

এ অভিযোগে কোন দেশের কত জনকে আটক করা হয়েছে, সে বিষয়ে কিছুই জানায়নি কর্তৃপক্ষ।

কাতারে বিভিন্ন কোম্পানিতে চাকরির খবর দেখুন এখানে ক্লিক করে

কাতারের আরও খবর

প্রবাস টাইম

Loading...
,