কাতারে ইতিহাস, ঐতিহ্য ও আধুনিকতার মিলনমেলা সুক ওয়াকিফ

কাতারে কি আপনি কেনাকাটা, ঐতিহ্যবাহী খাবার এবং পরিবার ও বন্ধুদের সাথে সময় কাটাতে বিনোদনমূলক পরিবেশ খুঁজছেন? তাহলে আপনার জন্য দোহার প্রাণকেন্দ্র সুক ওয়াকিফ একটি আদর্শ গন্তব্য হতে পারে।

এই সুক ওয়াকিফে আছে আপনার কেনাকাটা থেকে শুরু করে বিনোদনের নানা বিষয়, যা আপনাকে অবশ্যই মুগ্ধ করবে।

শুধু তাই নয়, বরং কাতারের ইতিহাস ও ঐতিহ্য এবং আরবীয় বিভিন্ন সংস্কৃতির ব্যাপারে আপনাকে ধারণা দেবে।

অতীতকাল থেকে কাতরের পুরানো এই বাজার ‍সুক ওয়াকিফ এখনও দর্শক, অধিবাসী ও পর্যটকদের কাছে একটি জনপ্রিয় গন্তব্য হিসেবে রয়ে গেছে।

এই বাজারকে দোহার সবচেয়ে প্রাণবন্ত স্থানগুলোর মধ্যে একটি হিসাবে বিবেচনা করা হয়।

বাজারটিতে ঐতিহ্যবাহী কাতারি খাবার, মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন বিশেষত্ব ও বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রেস্তোরাঁ রয়েছে।

সুক ওয়াকিফে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও জনপ্রিয় সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। তবে করোনাকালে সেই অবস্থা কিছুটা বদলে গেলেও আশা করা যাচ্ছে, খুব শিগগিরই আবারও আগের রূপ ফিরে পাবে এই বাজার।

বিশেষ করে কাতার জাতীয় দিবস ও কাতারের অন্যান্য ছুটির দিনে বিভিন্ন অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয় সুক ওয়াকিফে।

সুক ওয়াকিফে একটি পোষা প্রাণী ও পাখির বাজার রয়েছে। পোষা প্রাণীর এই বাজার শিশু, কিশোর ও বড়দের কাছে বেশ প্রিয় জায়গা। পুরো সুক ওয়াকিফে সবচেয়ে বেশি জমজমাট জায়গাগুলোর মধ্যে এটি একটি।

এখানে শিশু, কিশোর ও প্রাণী কিনতে বা দেখতে আগ্রহী মানুষরা বিভিন্ন জাতের ভিন্ন ভিন্ন পাখি দেখে আনন্দ পান। যেমন তোতাপাখি, খরগোশ, হরেক রঙের পাখি ও অন্যান্য পোষা প্রাণী আছে এখানে।

কাতারের সংস্কৃতি গবেষক সালেহ গারিব বলেন, সুক ওয়াকিফ দোহা শহরের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ পর্যটন আকর্ষণ। এটি কাতারের ইতিহাস, ঐতিহ্য ও আধুনিকতাকে চমৎকার ভাবে ফুটিয়ে তুলেছে।

গারিব আরও বলেন, ঐতিহ্যবাহী নিদর্শন, পেইন্টিং, ভাস্কর্য, টেক্সটাইল এবং বিশেষ করে প্রাণবন্ত খাবারের দৃশ্যসহ নানারকম ভিন্নতার জন্য বেশি বিখ্যাত এই সুক ওয়াকিফ।

কাতারের ঐতিহাসিকদের মতে, সুক ওয়াকিফ এখন থেকে আরও ২৫০ বছর আগের পুরোনো বাজার।

‘সুক ওয়াকিফ’ নাম ও এর উৎপত্তি সম্পর্কে গারিব বলেন, আরবি ভাষায় ‘সুক’ শব্দের অর্থ বাজার ও  ‘ওয়াকিফ’ শব্দের অর্থ দাঁড়ানো।

বাজারটির এই নামকরণের কারণ হলো তখনকার ব্যবসায়ীরা তাদের পণ্যগুলো এই বাজারে দাঁড়িয়ে বিক্রি করতেন।

এই বাজার সম্পর্কে আমার মনে পড়ে, আমি তখন আমার বাবার সাথে এখানে যেতাম। দেখতাম বিক্রেতারা তাদের উটের উপর মালামাল সাজিয়ে রাখতেন। কারণ সে সময় বাজারে পর্যাপ্ত দোকান ছিলো না। তাই বাধ্য হয়ে দাঁড়িয়ে থেকে বিক্রেতারা মালামাল বিক্রি করতেন।

ইতিহাস গবেষক গারিব

বাজারটিতে দর্শকদের আগ্রহের অনেক কিছু আছে।

নিজেদের আগ্রহের উপর নির্ভর করে দর্শকরা অনেক কিছু বেছে নিতে পারেন।

এখানে শিশু ও পরিবারগুলোর জন্য রাইডের পাশাপাশি বিনোদনমূলক আরও অনেক কিছু খুঁজে পেতে পারেন দর্শকরা। একইসাথে এখানে ঘুরে বেড়ানোর জন্য অনেক বড় জায়গা রয়েছে।

পর্যটকরা হস্তশিল্প, স্বর্ণ এবং মশলার বাজারগুলোর প্রতি বেশি আকৃষ্ট হন। সেখানে তারা ছবি তোলেন।

রূপা ও তামা দিয়ে সজ্জিত তলোয়ার ও খঞ্জর এবং কাতারের ঐতিহ্য ও ইতিহাসকে ধারণ করে এমন সব জিনিসপত্র কিনেন।

,