কাতারে চালু হচ্ছে বিশ্বের বৃহত্তম ক্রীড়া জাদুঘর

কাতারে চালু হতে যাচ্ছে বিশ্বের বৃহত্তম ক্রীড়া জাদুঘর। ৩১ মার্চ খলিফা আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে জনগণের জন্য উন্মুক্ত করা হবে ৩-২-১ কাতার অলিম্পিক ও ক্রীড়া জাদুঘর।

আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানির পৃষ্ঠপোষকতায় এই জাদুঘর চালু হবে। এটির উদ্বোধনী দিনেই ৭২ তম ফিফা কনফারেন্স শুরু হবে, যা কাতারে অনুষ্ঠিত হবে।

3-2-1 Qatar Olympic and Sports Museum to open on March 31

কাতার জাদুঘর কর্তৃপক্ষের চেয়ারপারসন শেইখা আল মায়াসা বিনতে হামাদ আল থানি এই জাদুঘর উদ্বোধনকে ‘কাতারের জাতীয় ভিশন ২০৩০-এ ক্রীড়ার গুরুত্বের প্রতীক’ হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

এটি অলিম্পিক জাদুঘর নেটওয়ার্কের অন্তর্ভুক্ত এবং দোহা এশিয়ান গেমস ২০০৬ এর ধারাবাহিকতায় গৃহীত প্রকল্প।

জাদুঘরটি নকশা করেছেন স্প্যানিশ স্থাপত্যশিল্পী হোয়ান সিবিনা। এটির আয়তন প্রায় ১৯ হাজার বর্গ মিটার, যা বিশ্বে এমন জাদুঘরের মধ্যে অন্যতম বৃহত্তমতে পরিণত করেছে।

‘৩-২-১’ জাদুঘরটিতে সাতটি গ্যালারি রয়েছে। এসব গ্যালারিতে বিশ্বের বিভিন্ন স্থান থেকে উপাদান স্থান পেয়েছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে ক্রীড়া ইতিহাসের একেবারে শুরুর দিককার কিছু নির্দশন।

কিউরোটরিয়াল বিষয়ক উপ-পরিচালক কেভিন মুর গ্যালারিগুলো সাজিয়েছেন। এগুলোর মধ্যে রয়েছে:

আবেগের বিশ্ব

এই গ্যালারি অভ্যর্থনা ও লবি হিসেবে কাজ করবে। এখানে জাদুঘর ও কাতারে ক্রীড়া ভ‚মিকা সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে।

খেলাধুলার বৈশ্বিক ইতিহাস

এখানে পাওয়া যাবে বিশ্বের খেলাধুলার প্রাচীন থেকে আধুনিক ইতিহাস। এখানে স্থান পাওয়া কিছু নিদর্শন সাধারণ যুগের আগের (বিসিই) ৮ম শতকের। আর সর্বশেষ বিংশ শতাব্দীর নিদর্শন রয়েছে। এখানে রয়েছে গ্রাফিক্স, অডিও-ভিজ্যুয়াল ও ইন্টর‌্যাক্টিভ ডিজিটাল উপাদান।

অলিম্পিক

এখানে আবিষ্কার করা যাবে অলিম্পিক গেমসের প্রাচীন গ্রিক যুগ থেকে শুরু করে আধুনিক অলিম্পিক শুরুর ইতিহাস।

১৯৩৬ সাল থেকে এখন পর্যন্ত সবগুলো গ্রীষ্ম ও শীতকালীন অলিম্পিকের টর্চ এখানে প্রদর্শনের জন্য স্থান পেয়েছে। এতে রয়েছে একটি ত্রিমাত্রিক ভিডিও যাতে আধুনিক অলিম্পিক শুরুর কাহিনী তুলে ধরা হয়েছে।

Amir visits Qatar Olympic and Sports Museum | The Peninsula Qatar
ইতোমধ্যে মিউজিয়াম পরিদর্শন করেছেন আমির শেখ তামিম

এতে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে সেই সব বিষয় যা আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক সভাপতি পিয়েরে ডি কুবার্টিনকে অলিম্পিক গেমস পুনঃপ্রচলনের দিকে ধাবিত করেছিল।

হল অব অ্যাথলেটস

এই হলে স্থান পেয়েছেন বিশ্বের ক্রীড়া নায়করা। তিন তলাজুড়ে বিস্তৃত এই গ্যালারিতে বিংশ ও একবিংশ শতকের ৯০ জন অ্যাথলেটের প্রোফাইল রয়েছে। এতে তাদের ক্রীড়াজীবন ও অর্জনের কথা লিপিবদ্ধ রয়েছে।

কাতার-স্বাগতিক দেশ

গুরুত্বপূর্ণ ক্রীড়া আয়োজনের নিয়মিত আয়োজক হিসেবে কাতারের ভ‚মিকা এই গ্যালারিতে স্থান পেয়েছে।

এতে ২০০৬ সালে দোহাতে এশিয়ান গেমস থেকে শুরু করে গত কয়েক বছরে কাতারে আয়োজিত গুরুত্বপূর্ণ টুর্নামেন্ট ও যে আন্তর্জাতিক মনোযোগ পেয়েছে তা তুলে ধরা হয়েছে।

কাতারে খেলাধুলা

এই গ্যালারিতে ক্রীড়াক্ষেত্রে কাতারের উন্নয়ন তুলে ধরা হয়েছে। প্রচলিত বিভিন্ন খেলা থেকে শুরু করে আন্তর্জাতিক ক্রীড়া ও প্রতিযোগিতার কথা রয়েছে।

কাতারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠিত খেলা, যেমন ফ্যালকনরি, পার্ল ডাইভিং ও উঠ দৌড়। এখানে খেলাধুলার সঙ্গে কাতারের ঐতিহ্য তুলে ধরা হয়েছে।

সক্রিয়তা জোন

শেষ গ্যালারিতে পরিদর্শকদের শারীরিক কর্মকান্ডকে উৎসাহিত করা হবে। কাতারের ছয়টি স্থান দিয়ে তাদের হাঁটার আহবান জানানো হবে।

পরিদর্শকরা চাইলে পার্ক, বাজার, মরুভ‚মি, সৈকত, শহর এবং গ্যালারি দিয়ে হাঁটতে পারেন।

ইন্টারন্যাশনাল ফিজিক্যাল লিটারেসি অ্যাসোসিয়েশনের সঙ্গে জাদুঘরটি কাজ করছে একটি স্বাস্থ্য সম্মত জীবনযাপনে উৎসাহিত করতে ন্যাশনাল ফিজিক্যাল লিটারেসি জার্নি উদ্ভাবনের।

দোহাভিত্তিক অ্যাডভোকেসি গ্রুপ অ্যাকসেসিবল কাতারের সঙ্গে জাদুঘরটি কাজ করছে যাতে করে এই স্থাপনা সম্পূর্ণ প্রবেশযোগ্য হয়।

কাতারের সব খবর হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে পেতে এখানে ক্লিক করে যুক্ত হোন গালফ বাংলা গ্রুপে

কাতারের আরও খবর

গালফ বাংলা

Loading...
,