কাতারে শূকরের মাংসের তৈরি পিৎজার মেনু নিয়ে তোলপাড়

কাতারে বৃহস্পতিবার দিনভর তোলপাড় চলে একটি রেস্টুরেন্টে শূকরের মাংসের তৈরি পিৎজা নিয়ে। কারণ, কাতারের আইনে শূকরের মাংস বা শূকরের মাংসের তৈরি কোনো খাবার বিক্রি করা বৈধ নয়।

মুসলিম দেশ এবং আরব দেশ হিসেবে কাতারে এমন আইন রয়েছে। ইসলামে শূকরের মাংস হারাম হওয়ায় এমন আইন আরও অনেক মুসলিম দেশে রয়েছে।

বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় খাবার পিৎজা

কিন্তু কাতারে এমন ঘটনা স্মরণকালে ঘটেনি। বৃহস্পতিবার পরিবারের সদস্যদের জন্য পিৎজার অর্ডার করতে গিয়ে এক কাতারি নাগরিক দেখতে পেলেন, রেস্টুরেন্টটির মেনুতে শূকরের মাংসের পিৎজাও আছে।

এমন আইটেম দেখে হতবাক কাতারি নাগরিক। টুইটারে বিষয়টি জানিয়ে বালাদিয়া (পৌরসভা) মন্ত্রণালয়ের ব্যাখ্যা চান ওই কাতারি নাগরিক। এর পরপরই শুরু হয় তোলপাড়।

ওই রেস্টুরেন্টের আরবি মেনু

জানা গেছে, ওই রেস্টুরেন্টটি লুসাইলে অবস্থিত। টুইটারে যে অভিযোগ করেন কাতারি নাগরিক, এর সাথে তিনি মেনুর স্ক্রিনশট শেয়ার করেন। যাতে স্পষ্ট লেখা, শূকরের মাংসের তৈরি পিৎজা।

কাতারি নাগরিকের অভিযোগ পেয়ে নড়েচড়ে বসে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। তাৎক্ষণিকভাবে ওই রেস্টুরেন্টের বিরুদ্ধে অভিযোগ গৃহীত হয়।

এরপর মন্ত্রণালয়ের পরিদর্শক দল ছুটে যান ওই রেস্টুরেন্টে। একে একে তল্লাশি শুরু হয় রেস্টুরেন্টের সর্বত্র। কিন্তু শূকরের মাংসের কোনো সন্ধান মিলেনি কোথাও।

রেস্টুরেন্টের ফ্রিজ, গোডাউন থেকে শুরু করে সব জায়গায় চলে কঠোর তল্লাশি ও অনুসন্ধান অভিযান।

এক পর্যায়ে মেনুর ব্যাপারে শুরু হয় জিজ্ঞাসাবাদ। রেস্টুরেন্টের মালিক জানালেন, এটি নিছক অনুবাদের ভুল।

আরবি মেনুতে অনুবাদের ভুলে অন্য আইটেমের নাম অনুবাদ করতে গিয়ে শূকরের মাংস লেখা হয়েছে। এর পরপরই ওই মেনু সরিয়ে ফেলা হয় অনলাইন থেকে।

বিষয়টি নিয়ে ব্যাখ্যা দেয় কাতারের বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও বালাদিয়া কর্তৃপক্ষ।

Loading...
,