কাতারে সাগরে ডুবে তিনজনের মর্মান্তিক মৃত্যু

কাতারে আল মারুনা বিচে এক মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় শোকাহত হয়ে আছে ভারতীয় কমিউনিটি।

গত ৮ অক্টোবর শুক্রবার সন্ধ্যায় কাতারের আল মারুনা বিচে জোয়ারের সময় সাগরে ডুবে এক ব্যক্তি ও দুই শিশুর করুণ মৃত্যু হয়েছে।

নিহতদের মধ্যে একজন ৩৮ বছর বয়সী বাবা ছিলেন যার নাম বালাজি বালাগুরু। সাথে ছিল তার ১০ বছর বয়সী ছেলে রক্ষণ। তৃতীয় আরেকজন বর্ষিনী বৈদ্যনাথন নামের ১২ বছর বয়সী একটি মেয়ে।

মর্মান্তিক এই ঘটনায় মারা যাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে বালাজি বালাগুরু ও রক্ষণ ছিল এক পরিবারের বাবা ও ছেলে এবং এবং বর্ষিনী বৈদ্যনাথন ছিল অন্য আরেকটি পরিবারের সন্তান।

বালাজি দোহায় একটি প্রতিষ্ঠানে সিনিয়র ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। আর বর্ষিনী ডিপিএস মোনার্ক ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী। রক্ষণ ছিল বিরলা পাবলিক স্কুলের পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্র।

তারা সবাই ভারতের দক্ষিণাঞ্চলীয় রাজ্য তামিলনাড়ুর প্রবাসী। বালাজি থানজাভুর জেলার কুম্ভাকনমের বাসিন্দা এবং বর্ষিনী ছিল চেন্নাইয়ের।

জানা গেছে, দুর্ঘটনাটি আল মারুনা বিচে সেদিন বিকেল ৫ টায় ঘটে। এটি কাতারের উত্তর পূর্বে ফুয়াইরিত বিচের ঠিক আগে অবস্থিত।

তারা সমুদ্রের যে স্থানে নেমেছিলেন তা অগভীর ছিল। কিন্তু হঠাৎ বড় ঢেউ এসে তাদেরকে সমুদ্রের গভীরে টেনে নিয়ে যায়। সাথে সাথে ঘটনাস্থলে পুলিশ ও কোস্ট গার্ড চলে আসে এবং তাদেরকে উদ্ধার করে।

তবে বালাজি ও বর্ষিনী ঘটনাস্থলে মারা যান। রক্ষণকে দ্রুত সিদরা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় কিন্তু তিন ঘণ্টা পর রক্ষণও মারা যান। চিকিৎসকরা রক্ষণকে বাঁচাতে যথাসাধ্য চেষ্টা করেছিলেন।

এরা সবাই শুক্রবার ছুটি উপভোগ করতে সৈকতে গিয়েছিলেন।

,