ক্ষমা চাইলেন ক্রাইস্টচার্চ মসজিদ হামলা নিয়ে সিনেমার প্রযোজক

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ মসজিদে অস্ত্রধারীদের হামলার ঘটনা নিয়ে প্রস্তাবিত সিনেমার প্রযোজক ফিলিপ্পা ক্যাম্পবেল ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন।

বিশ্বব্যাপী সমালোচনার পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার (১৪ জুন) তিনি পদত্যাগের ঘোষণা দেওয়ার সময়ে আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। বিবিসির এক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা গেছে।

ফিলিপ্পা ক্যাম্পবেল বলেন, ‘সিনেমাটি সম্পর্কে গত কয়েকদিনে অনেক সমালোচনা হয়েছে। এর মধ্যে কারও কারও সমালোচনা আমার কানে এসেছে। আমি মানুষের মন্তব্যগুলো সম্পর্কে অবহিত আছি।

আমি বুঝতে পারছি ২০১৯ সালের ১৫ মার্চ নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ মসজিদে হামলা নিয়ে সিনেমার প্রযোজনা করা আমার ঠিক হয়নি। তাই আমি আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমা প্রার্থনা করছি।’

বিবিসির প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, নিউজিল্যান্ডের মসজিদে মুসল্লিদের ওপর হামলা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাবিত সিনেমার নাম ‘দে আর আস’।

চিত্রনাট্যে দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী জ্যাকিন্ডা আর্ডেনসকে ভুলভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন সমালোচকরা। তবে ফিলিপ্পা ক্যাম্পবেলের পদত্যাগের মধ্য দিয়ে সিনেমাটির শুটিং থেমে থাকবে না বলেও জানা গেছে।

সোমবার নিউজিল্যান্ডের সাবেক প্রধানমন্ত্রী জ্যাকিন্ডা আর্ডেনস যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাবিত সিনেমা সম্পর্কে ব্যাপক সমালোচনা করেছেন।

স্থানীয় একটি টেলিভিশন টিভিএনজেডকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে আমি মনে করছি, সিনেমাটিতে নিউজিল্যান্ডের অপমান করা হবে এবং আমার দেশের মানুষকে সস্তা হিসেবে চিত্রিত করা হবে। এটি আমি কোনোভাবেই মেনে নেব না।’

একই সঙ্গে সিনেমাটি সম্পর্কে নিউজিল্যান্ডের সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায়ও সমালোচনা করছেন এবং এর মাধ্যমে ‘বর্ণবাদী সন্ত্রাসবাদ’ উসকে দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন।

ক্রাইস্টচার্চ মসজিদে হামলায় নিহত হোসেনের ভাই আয়া আল উমারি বলেন, ‘এটা বলার মতো কোনো গল্প নয়।’

,