বাংলাদেশে আবার চালু হচ্ছে ৬টি বিমানবন্দর

অব্যবহৃত ছয়টি বিমানবন্দর আবার চালুর উদ্যোগ নিয়েছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)। চলতি বছরই এসব বিমানবন্দর সংস্কারের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

সেই অনুযায়ী কাজ শুরু করার ব্যাপারেও আশাবাদী বেবিচক কর্মকর্তারা।

কাতারে চাকরি খুঁজছেন? এখানে ক্লিক করুন

বিমানবন্দরগুলো কী অবস্থায় আছে তা নিয়ে একটি প্রতিবেদন তৈরি করে প্রধানমন্ত্রী ও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।

ওই প্রতিবেদন অনুযায়ী, অকেজো অবস্থায় পড়ে থাকা কোনো কোনো বিমানবন্দরে গরু-ছাগল চরানো হচ্ছে। আবার কোনোটিতে গরুর খামার গড়ে তোলা হয়েছে।

এদিকে, বাগেরহাটের খানজাহান আলী বিমানবন্দরের কাজ দ্রত শুরু করার নির্দেশ দিয়েছে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালায়। দীর্ঘদিন ধরে কাজ শুরু করার কথা থাকলেও তা করা হয়নি।

কাতারের সব খবর হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, দিনে দিনে আকাশপথের যাত্রা বেড়ে গেছে। সড়কপথে যানজটের বিড়ম্বনা এড়াতেই মূলত আকাশপথে যাতায়াতের প্রবণতা বাড়ছে নিয়মিত। ফলে এভিয়েশন খাতও লাভজনক হয়ে উঠেছে।

কাশপথের প্রতিটি রুটেই যাত্রী বাড়ায় চাহিদা অনুযায়ী টিকিট পাওয়া যায় না। বর্তমানে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, শাহ আমানত, সিলেট ওসমানী, কক্সবাজার, যশোর, সৈয়দপুর, বরিশাল ও রাজশাহী বিমানবন্দর দিয়ে বিমান চলাচল করছে।

অকেজো অবস্থায় যেসব বিমানবন্দর পড়ে আছে, সেগুলো হলো পাবনার ঈশ্বরদী, ঠাকুরগাঁও, মৌলভীবাজারের শমশেরনগর, কুমিল্লা, বগুড়া ও লালমনিরহাট।

ব্রিটিশ আমলে বিমানবন্দরগুলো তৈরি করা হয়। কয়েকটি বিমানবন্দর চালু হলেও সেগুলো বন্ধ হয়ে যায়। কোনো কোনো বিমানবন্দর চালু করার জন্য বিভিন্ন মহল থেকে দাবিও উঠেছে।

বেবিচক সূত্র জানায়, বিমানবন্দরগুলো বর্তমান কী অবস্থায় আছে, তা নিয়ে বেবিচক কর্মকর্তারা সম্প্রতি একটি প্রতিবেদন তৈরি করেছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বেবিচকের এক কর্মকর্তা বলেন, অব্যবহৃত বিমানবন্দরগুলোর মধ্যে দুটিতে একটি বাহিনীর গরুর খামার আছে এবং সেখানে বিভিন্ন অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। অন্যগুলোর অবস্থা খারাপ।

কয়েকটিতে গরু-ছাগল লালন-পালন করা হয়। সব কটি বিমানবন্দরই পুনরায় সক্রিয় করতে সরকারের কাছে অনুরোধ করা হয়েছে। কী পরিমাণ অর্থ লাগবে তা নিরূপণ করতে তারা কাজ করছেন। তারা আশা করছেন, চলতি বছর কাজ শুরু করা যাবে।

তিনি বলেন, সর্বশেষ ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত ঈশ্বরদী বিমানবন্দরে নিয়মিত ফ্লাইট পরিচালনা করা হয়। ২০১৩ সালে ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ এখান থেকে বাণিজ্যিক ফ্লাইট চালু করলেও পরের বছরই তা বন্ধ হয়ে যায়।

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের কারণে ঈশ্বরদী বিমানবন্দর ঘিরে নতুন সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে বলে তারা মনে করছেন।

ঈশ্বরদী বিমানবন্দরটি চালু হলে পাবনা, নাটোর ও কুষ্টিয়ার মানুষ সহজেই যাতায়াত করতে পারবেন এবং অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড বাড়বে বলে দাবি ওই এলাকার মানুষের।

এ নিয়ে ওই অঞ্চলের জনপ্রতিনিধিরা সংসদে কথা বলেছেন। দেশের সবচেয়ে বড় উন্নয়ন প্রকল্প পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র, রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল (ইপিজেড), বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পের কারণে প্রতিদিন অসংখ্য মানুষকে পাবনায় যেতে হচ্ছে।

বেবিচকের ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘১৯৯৫ সালে অ্যারো বেঙ্গল এয়ার সার্ভিস মৌলভীবাজারের শমসেরনগর বিমানবন্দর থেকে ফ্লাইট চালু করলেও যাত্রীর অভাবে কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়।’

‘হবিগঞ্জ ও মৌলভীবাজারের মানুষকে বিমানে যাতায়াত করতে সিলেট বিমানবন্দর ব্যবহার করতে হয়। সময় লাগছে বেশি। শমসেরনগর বিমানবন্দর চালু হলে এই অঞ্চলের মানুষ অনেক উপকৃত হবে।’

‘কুমিল্লা মহানগরীর নেউরা-ঢুলিপাড়ার পাশে কুমিল্লা বিমানবন্দর ১৯৭৬ সাল পর্যন্ত অভ্যন্তরীণ রুটে সচল ছিল। ১৯৯৪ সালে পুনরায় বিমানের ফ্লাইট চালু হলেও যাত্রী সংকটের কারণে বন্ধ হয়ে যায়।’

‘বিমানবন্দর-সংলগ্ন ইপিজেড রয়েছে, কিন্তু যোগাযোগ সমস্যার কারণে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা খুব বেশি আগ্রহ দেখাচ্ছে না। তিনি বলেন, এসব বিষয় আমরা প্রতিবেদনে উপস্থাপন করেছি।’

ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, ১৯৮০ সাল থেকে ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দরটি অকেজো। আশির দশকের পর লালমনিরহাট বিমানবন্দর দিয়ে ফ্লাইট চলাচল করেনি। বগুড়া বিমানবন্দর চালুর উদ্যোগ নেওয়া হলেও বাস্তবায়ন হয়নি।

আরো পড়ুন

Loading...
,