বিশ্বজুড়ে ইসলামের মহিমা তুলে ধরতে ইমরানের উদ্যোগ

বিশ্বে ইসলামের সত্যিকারের মহিমা তুলে ধরতে অভিনব উদ্যোগ নিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। প্রতিষ্ঠা করেছেন রেহমাতুল-লিল-আলামিন কর্তৃপক্ষ নামের একটি সংগঠন।

রাজধানী ইসলামাবাদে রোববার আশরা-ই-রেহমাতুল-লিল-আলামিনের সম্মেলনে তিনি ওই সংগঠন প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দেন বলে দি এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

ইমরান বলেন, ‘অনেক বিশেষজ্ঞ রেহমাতুল-লিল-আলামিন কর্তৃপক্ষে অংশ নেবেন। এ কর্তৃপক্ষের অন্যতম কাজ হবে, ইসলামের প্রকৃত বার্তা বিশ্বকে জানানো।’

তিনি বলেন, ‘রেহমাতুল-লিল-আলামিনের বিশেষজ্ঞরা স্কুলের পাঠ্য বইয়ের কারিকুলাম তদারকি করবেন।

‘কোনো কারিকুলামে পরিবর্তনের দরকার পড়লে ওই বিশেষজ্ঞরা আমাদের তা জানাবেন। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অন্যান্য ধর্মও পড়ানো হবে।’

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা আমাদের শিশুদের যেসব কার্টুন দেখাই, সেসব দেখে তারা বিদেশি সংস্কৃতি সম্পর্কে ধারণা পায়।

‘আমরা শিশুদের বিদেশি কার্টুন দেখতে মানা করতে পারি না। তবে তাদের সামনে বিকল্প হাজির করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘পাকিস্তানের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে এখন পশ্চিমা সংস্কৃতির ইতিবাচক ও নেতিবাচক দিকের মূল্যায়ন নিয়ে গবেষণা হবে। এ ধরনের কোনো গবেষণা আগে হয়নি। এর পরিচালনায় থাকবে রেহমাতুল-লিল-আলামিন কর্তৃপক্ষ।

‘পাকিস্তান সমাজের ওপর পশ্চিমা সংস্কৃতির প্রভাব নিয়েও গবেষণা হবে।’

ইমরান বলেন, ‘দেশে পশ্চিমা সংস্কৃতি ঢোকানো হলে এটির সুবিধা-অসুবিধা মূল্যায়নের প্রয়োজন রয়েছে। পশ্চিমা সংস্কৃতি আমাদের পরিবারব্যবস্থার ওপর প্রভাব ফেলছে। এ বিষয়ে আমাদের কোনো গবেষণা নেই।’

তিনি বলেন, ‘সমাজ দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা না বললে বিদ্যমান ব্যবস্থার পরিবর্তন হবে না। পুরো সমাজকেই দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়তে হবে।

‘সরকারের সীমাবদ্ধতা রয়েছে। তবে সমাজ জাগলে দুর্নীতি পালাতে বাধ্য।’

ইমরান খান আরও বলেন, ‘পশ্চিমাদের নৈতিক অবস্থান আমাদের চেয়ে উন্নত। তাদের বিচারব্যবস্থা অনেক ভালো। সেখানে মানবিক বোধসম্পন্ন মানুষেরও প্রচুর দেখা মেলে।

‘ইসলামের অনেক মূল্যবোধের উপস্থিতি পশ্চিমা ব্যবস্থায় আমি দেখেছি। নৈতিকতা কমলে জাতির অগ্রগতি থেমে যায়।’

চীনের প্রসঙ্গ টেনে ইমরান বলেন, ‘মানব ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি মানুষকে দারিদ্র্যমুক্ত করেছে চীন। দুর্নীতি দমনের মাধ্যমে তারা এটি করতে সক্ষম হয়েছে।

‘এ ছাড়া দুর্নীতিগ্রস্ত হাজার হাজার মানুষকে কারাদণ্ড দিয়েছে চীন। দেশটি অবিশ্বাস্য দ্রুততায় এগিয়ে গিয়ে আজ বিশ্বকে নেতৃত্ব দিচ্ছে।’

,