২ বছরের সাজা থেকে বাঁচতে কাতার ও সৌদিতে লুকিয়ে ছিলেন ২৮ বছর

ডাকাতির মামলায় দুই বছরের সাজা এড়াতে দীর্ঘ ২৮ বছর পালিয়ে ছিলেন নরসিংদীর শিবপুরের বাসিন্দা মাহমুদুল হাসান মঞ্জুর। তবুও শেষ রক্ষা হলো না তার। অবশেষে রোববার র‌্যাবের হাতে ধরা পড়েছেন ৫৩ বছর বয়সী মঞ্জু।

র‌্যাব-১১, নরসিংদী ক্যাম্পের কমান্ডার ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট মো. তৌহিদুল মবিন খান এ তথ্য জানিয়েছেন।

র‌্যাব জানায়, গ্রেপ্তার হওয়া মাহমুদুল হাসান মঞ্জু নরসিংদীর শিবপুর উপজেলার সৈয়দেরখোলা গ্রামের মৃত আব্দুল জলিলের ছেলে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর থানায় ডাকাতির অভিযোগে দায়ের হওয়া একটি মামলায় ১৯৯২ সালে আদালত কর্তৃক সাজাপ্রাপ্ত হয়েছিলেন তিনি। পলাতক থাকায় সাজাপ্রাপ্ত হওয়ার পর তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছিল আদালত।

র‌্যাব আরও জানায়, গ্রেপ্তারি পরোয়ানা মাথায় নিয়ে তিনি বিদেশে পাড়ি জমান। ১৯৯২ সাল থেকে প্রায় ১১ বছর টানা বিদেশে আত্মগোপনে থাকার পর ২০০৩ সালে তিনি দেশে ফেরেন।

সে সময় প্রথম স্ত্রী’র সঙ্গে তার বিচ্ছেদ ঘটে। এরপর তিনি গোপনে ফের বিয়ে করে পুনরায় বিদেশে পালিয়ে যান। গ্রেপ্তারের আগ পর্যন্ত তিনি দীর্ঘ ২৮ বছর কাতার ও সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি দেশে আত্মগোপনে থাকেন।

র‌্যাব কর্মকর্তা মো. তৌহিদুল মবিন খান জানান, দীর্ঘদিনের অপেক্ষমাণ গ্রেপ্তারি পরোয়ানা সংগ্রহের পর মাহমুদুল হাসান মঞ্জুর বিষয়টি তারা জানতে পারেন। এরপর তার সম্পর্কে খোঁজ নিতে গিয়ে জানতে পারেন, গত ছয় মাস আগে মঞ্জু দেশে ফিরেছেন।

এরপর র‌্যাব সদস্যরা গোয়েন্দা নজরদারির মাধ্যমে শিবপুরে এক আত্মীয়ের বাড়িতে আসামির অবস্থান সম্পর্কে নিশ্চিত হন। এরপর সেখানে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃত মঞ্জুকে বাঞ্ছারামপুর থানায় সংশ্লিষ্ট মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তার কাছে হস্তান্তর করা হবে বলেও জানান র‌্যাবের এই কর্মকর্তা।

,