শনিবার ৩০শে মে ২০২০ |

করোনা: ১০ হাজার বন্দী ছেড়ে দিল ফিলিপাইন

 শনিবার ২রা মে ২০২০ বিকাল ০৪:২৭:১০
করোনা:

রাজধানী ম্যানিলার কেজন সিটি জেলের দৃশ্য। ছবিটি ২৭ মার্চ, ২০২০ তারিখে তোলা। এএফপি

কয়েদিতে ঠাসা জেলখানাগুলোতে করোনাভাইরাসে প্রাদুর্ভাবে প্রায় ১০ হাজার  বন্দীকে ছেড়ে দিয়েছে ফিলিপাইন সরকার। দেশটির সুপ্রিম কোর্টের এক বিচারপতির  উদ্ধৃতি দিয়ে এ ব্যাপারে শনিবার সংবাদ প্রকাশ করেছে বার্তা সংস্থা এএফপি।

দেশটির নিম্ন আদালতে সুপারিশে বন্দীদের যারা জামিনের খরচ বহন করতে অক্ষম  তাদের মুক্তি দেওয়া হয়েছে বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের  সহযোগী বিচারপতি মারিও ভিক্টর লিওনেন।

লিওনেন বলেন, জেলখানায় কয়েদিদের গাদাগাদির বিষয়টি নিয়ে আদালত অনেক সতর্ক। ৯,৭৩১ জনকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।

ফিলিপাইনের বেশ কিছু কারাগার বন্দীতে ঠাসা। কারাগারগুলোর অবকাঠামো এত  বাজে যে, সেখানে সামাজিক দূরত্বের ব্যবস্থা প্রায় অসম্ভব। কয়েদি ও সংশোধন  কর্মীদের অনেকে প্রাণঘাতী কভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছেন বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে।  এর প্রেক্ষিতেই উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বন্দী মুক্তির সিদ্ধান্ত নিল দেশটির  সরকার।


প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুতার্তে ২০১৬ সালে মাদক বিরোধী অভিযান চালানোর পর  থেকে ফিলিপাইনের জেলখানাগুলোতে কয়েদিদের সংখ্যা বাড়ে ব্যাপক হারে। করোনার  সংকটে বিষয়টি উদ্বেগ হয়ে দাঁড়ায়।

কয়েদিদের সবচেয়ে বেশি গাদাগাদি রাজধানী ম্যানিলার কেজন সিটি জেলে।  সেখানে অবস্থা এতটাই বেগতিক যে, বন্দীদের অনেককে সিঁড়িতে বা বাস্কেটবল  কোর্টে খোলা আকাশের নিচে ঘুমাতে হয়।

করোনার হানা বেশি কেবু অঞ্চলের সেন্ট্রাল আইল্যান্ডের দুটি প্রিজনে।  সেখানে প্রায় ৮ হাজার বন্দীর ৩৪৮ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। শুক্রবার এমন  খবর প্রকাশিত হওয়ার পর বন্দীদের সুরক্ষায় জোরালো দাবি তুলতে থাকে অধিকার  সংস্থাগুলো। অহিংস অপরাধে যারা বন্দী আছেন এবং যারা অসুস্থতা ও বয়স্ক তাদের  মুক্তির দাবি জানায় তারা।

দ্বীপ সমৃদ্ধ প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশ ফিলিপাইনে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৯ হাজার ছুঁই ছুঁই। মৃত্যু ৬০৩ জনের।

গালফবাংলায় প্রকাশিত যে কোনো খবর কপি করা অনৈতিক কাজ। এটি করা থেকে বিরত থাকুন। গালফবাংলার ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন।
খবর বা বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন: editorgulfbangla@gmail.com

সংশ্লিষ্ট খবর