বুধবার ৮ই জুলাই ২০২০ |

এক প্রবাসীর স্ত্রীকে অপহরণ করলেন আরেক প্রবাসী

কাতার |  রবিবার ২৮শে জুন ২০২০ দুপুর ১২:২১:১৫
এক

যশোরের মণিরামপুর থেকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে অপহরণ করে বগুড়ায় নিয়ে যাওয়া এক প্রবাসীর স্ত্রীকে উদ্ধার ও ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে তিনজনকে আটক করেছে যশোর ডিবি পুলিশ।

আটককৃতদের কাছ থেকে ১৬ লাখ টাকা ও ২ ভরি সোনার গয়নাও উদ্ধার করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার বগুড়ার ধুনট উপজেলার ধামাচামা গ্রাম থেকে আসামিদের আটক এবং ওই গৃহবধূকে উদ্ধার করা হয়।

আটককৃতদের মধ্যে একজন ইউপি সদস্য রয়েছেন। আটককৃতরা হলেন- বগুড়ার ধুনট উপজেলার ধামাচামা গ্রামের শাহ আলমের ছেলে জুয়েল আহমেদ, একই গ্রামের ইউপি সদস্য আলমগীর হোসেন ও তাঁর ভাই মামুন-উর-রশীদ। আটককৃতদের শুক্রবার বিকেলে আদালতে হাজির করা হয়। আদালত উদ্ধার হওয়া গৃহবধূ রিমা খাতুনকে পরিবারের জিম্মায় এবং আটককৃতদের কারাগারে পাঠিয়েছেন।  

যশোর ডিবি পুলিশের ওসি মারুফ আহমেদ শনিবার দুপুরে জানান, মণিরামপুর উপজেলার মহাদেবপুর গ্রামের প্রবাসী হাফিজুর রহমান গাজীর স্ত্রী রিমা খাতুনের সঙ্গে ফেসবুকের মাধ্যমে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন বগুড়া জেলার ধুনট উপজেলার ধামাচামা গ্রামের শাহ আলমের ছেলে মালয়েশিয়াপ্রবাসী সোহেল রানা। হাফিজুর-রিমা দম্পতির দুটি সন্তান রয়েছে। 

গত ১ জুন স্বামীর বাড়ি থেকে হঠাৎ নিখোঁজ হন রিমা খাতুন। পরে তার পরিবারের লোকজন জানতে পারে, সোহেলের নির্দেশে তাঁর ছোট ভাইসহ কয়েক সহযোগী মণিরামপুর এসে রিমাকে মাইক্রোবাসযোগে নিয়ে গেছে। যাওয়ার সময় রিমা তাঁর স্বামীর পাঠানো ৩৬ লাখ টাকা ও ১২ ভরি ওজনের সোনার গয়না নিয়ে যান। এ ঘটনায় গত ১৬ জুন রিমার শ্বশুরবাড়ির লোকজন মণিরামপুর থানায় অপহরণের অভিযোগে মামলা করেন।

এরপর তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় ভিকটিম ও আসামিদের অবস্থান শনাক্ত করা হয়। গত বৃহস্পতিবার ভোরে বগুড়ার ধুনট উপজেলার ধামাচামা গ্রামের সোহেল রানার ভাই জুয়েলের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে রিমা খাতুনকে উদ্ধার করে ডিবির একটি টিম। একই সঙ্গে স্থানীয় ইউপি সদস্য আলমগীর হোসেনের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ১৬ লাখ টাকা ও দুই ভরি সোনার গয়না উদ্ধার করা হয়। ওই সময় গৃহবধূকে নিয়ে যাওয়ার ঘটনায় জড়িত জুয়েল আহমেদ, স্থানীয় ইউপি সদস্য আলমগীর হোসেন ও মামুন উর রশিদ নামে তিনজনকে আটক করা হয়। তিনি আরো বলেন, আসামিরা টাকা ও স্বর্ণালংকার হাতানোর উদ্দেশ্যে রিমা খাতুনকে কৌশলে বগুড়া নিয়ে তাঁকে আটকে রাখে। 

তিনি আরো জানান, শুক্রবার বিকেলে রিমা খাতুন ও আটক তিন আসামিকে যশোরের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাহাদি হাসানের আদালতে সোপর্দ করা হয়। এ সময় রিমা খাতুন দণ্ডবিধির ২২ ধারায় জবানবন্দি দেন। এ ছাড়া আটক তিন আসামি আদালতে অপহরণের দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দেন। পরে আদালত রিমা খাতুনকে তাঁর পরিবারের হেফাজতে এবং আসামিদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

কাতারের সব খবর সবার আগে পেতে হলে এখানে ক্লিক করে লাইক দিয়ে রাখুন

আরও অন্যান্য খবর

গালফবাংলায় প্রকাশিত যে কোনো খবর কপি করা অনৈতিক কাজ। এটি করা থেকে বিরত থাকুন। গালফবাংলার ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন।
খবর বা বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন: editorgulfbangla@gmail.com

সংশ্লিষ্ট খবর